শিশুদের ওপর যৌন হেনস্থার ঘটনা দিনের পর দিন বেড়েই চলেছে। তবে শিশুদের ওপর যৌন হেনস্থার ঘটনা রুখতে আরও কড়া পদক্ষেপ গ্রহণ করতে চলেছে কেন্দ্রীয় সরকার। জঘন্য এই অপরাধের জন্য পকসো  আইনে সংশোধন এনে ওই আইনে অপরাধীর মৃত্যদণ্ডের বিধান দেওয়ার চেষ্টায় কেন্দ্র। ওই আইনের সংশোধনী বিতর্কে অংশ নিয়েছিলেন তৃণমূল নেতা তথা রাজ্যসভার সদস্য ডেরেক ও'ব্রাইন। সেখানে দাঁড়িয়ে নিজের অভিজ্ঞতার কথা জানাতে গিয়ে এক চাঞ্চল্যকর ঘটনার বিবরণ দেন তিনি।

 ঘটনার ব্যাখ্যা দিতে গিয়ে তিনি ফিরে যান তাঁর শৈশবে। তিনি জানান এতদিন এই ঘটনা কেবল তাঁর পরিবারের লোকরাই জানত, তবে এবার তা সারা ভারতের জানা উচিত। তিনি বলেন, তখন তাঁর বয়স মাত্র ১৩ বছর। টেনিস প্র্যাক্টিস সেরে বাসে করে বাড়ি ফিরছিলেন তিনি। ওইদিন তাঁর পরনে ছিল শর্ট প্যান্ট এবং টি-শার্ট। ভিড় বাসে তাঁর পিছনে কে দাঁড়িয়েছিল তিনি জানেন না, তবে সেইদিন তাঁকে যৌন হেনস্থা করা হয়েছিল বলে জানান তিনি। এখানেই শেষ নয়, তিনি আরও বলেই, অজ্ঞাত পরিচয় সেই ব্যক্তি তাঁর প্য়ান্টে বীর্যপাত করেছিল!

আরও পড়ুন- সত্য জ্ঞানের বড়ই অভাব, কার্গিল বিজয় দিবসের আগে সামনে এল এক নির্মম সত্য

এই ঘটনার ব্যাখ্যা দিয়ে তিনি জানান, এইধরণের ঘটনা ঘটলে সকলের উচিত ছোটদের সেই বিষয়টি প্রকাশ্যে আনতে উৎসাহিত করা। এই ঘটনা তাদের চেপে রাখতে বাধ্য করা হলে কিন্তু তাঁরা ধীরে ধীরে মানসিকভাবে বিধ্বস্ত হয়ে পড়বে।  তিনি আরও বলেন, শিশুদের ওপর যৌন নির্যাতন রুখতে আরও কঠোর হচ্ছে কেন্দ্র, তা হোক, আদালতের কাজ হল শাস্তি প্রদান। কিন্তু প্রতিরোধ গড়ে তুলতে হবে আমাদেরই। তিনি আরও বলেন যে, প্রথমে এই ঘটনার কথা তিনি পরিবারের কাছে জানাতে পারেননি, আরও খানিকটা বড় হওয়ার পর সেই ঘটনার কথা তিনি বাবা-মা'কে জানান।