দীর্ঘ দিন বন্ধ থাকার পর সোমবার থেকে অন্তর্দেশীয় বিমান পরিষেবা শুরু হয়েছে। আর মঙ্গলবারই বড়সড় দুর্ঘটনার মুখোমুখি হচ্ছিল ভারতের বেসরকারি সংস্থা এয়ার এশিয়ার একটি বিমান। তবে চালকের তৎপরতায় এযাত্রায় রক্ষা পেয়েছেন ৭০ জন যাত্রী সহ ৭৬ জন। 

জয়পুর থেকে হায়দরাবাদের উদ্দেশ্যে রওনা দিয়েছিল বিমানটি। কিন্তু মাঝ আকাশেরই যান্ত্রিক গলোযোগ ধরা পড়ে। জ্বালানী ট্যাঙ্কে একটি ছিদ্র লক্ষ্য করেন পাইলট। তারপরই বন্ধ করে দেন ইঞ্জিন। খবর দেন বিমানবন্দর কর্তৃপক্ষকে। যুদ্ধকালীন তৎপরতায় নিরাপত্তার চাদরে মুড়ে ফেলা হয় হায়দরাবাদের রাজীব গান্ধী ইন্টারন্যাশানাল বিমান বন্দর। বন্ধ রাখা হয় সমস্ত জরুরি পরিযেবা। যতক্ষণ পর্যন্ত বিমানের সফল অবতরণ হয় ততক্ষণ প্রায় দমবন্ধ করা পরিস্থিতি তৈরি হয়েছিল বলেই বিমান বন্দর সূত্রের  খবর। 

এয়ার এশিয়া কর্তৃপক্ষের তরফে জানান হয়েছে, সফলভাবেই জরুরি অবতরণ করছে এয়ার এশিয়ার আই ৫১৫৪৩ বিমানটি। দুপুর এটা বেজে ২৫ মিনিটে সেটি হায়দরাবাদের রাজীব গান্ধী আন্তর্জাতিক বিমান বন্দরে অবতরণ করে।পাশাপাশি জানান হেয়েছে, যাত্রী ও সংস্থার কর্মীদের প্রতি তাঁরা দায়বদ্ধ। তাঁদের জীবনের নূন্যতম ক্ষতি করতে চায়না সংস্থা। কর্মীরা যথেষ্ট প্রশিক্ষণ প্রাপ্ত বলেও এই কঠিন পরিস্থিতি মোকাবিলা করতে সক্ষম হয়েছে বলেও জানান হয়েছে। বিমানের সকল যাত্রী ও ক্রু মেম্বার সুস্থ ও স্বাভাবিক রয়েছে বলেও জানান হয়েছে। বিমানের কর্মীরা সকলেই নির্ধারিত সূচি অনুযায়ী শামসাবাদে অবতরণ করেন। যাত্রীদের ছত্তিশগড় বেঙ্গালুরু বিমানে তুলে দেওয়া হয়েছে।  পাশাপাশি এয়ার এশিয়ার মুখপাত্র, এই সমস্যার জন্য যাত্রীদের কাছে ক্ষমাও প্রার্থনা  করেছেন।