গত ২২ মে প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী পশ্চিমবঙ্গে এসেছিলেন আকাশপথে ঘূর্ণিঝড় আমফানের দাপটে বাংলার ক্ষয়ক্ষতির পর্যালোচনা করতে। সেই সময় কি তাঁকে 'চৌকিদার চোর হ্যায়' স্লোগানে স্বাগত জানিয়েছিল বাংলা? সোশ্যাল মিডিয়ায় ভাইরাল হওয়া একটি ভিডিওতে দেখা যাচ্ছে, নরেন্দ্র মোদী, পশ্চিমবঙ্গের মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়, রাজ্যপাল জগদীপ ধনখর ও আরও কয়েকজনকে নিয়ে হেলিকপ্টারের দিকে এগোচ্ছেন। আর ব্যাকগ্রাউন্ডে সেই স্লোগান শোনা যাচ্ছে। ভিডিওটি সোশ্য়াল মিডিয়ায় পোস্ট করে দাবি করা হচ্ছে, বাংলায় প্রধানমন্ত্রীকে এভাবেই স্বাগত জানানো হয়েছে।

বস্তুত গত কয়েকদিন ধরে বাংলার একটি বড় অংশে যোগাযোগ ব্যবস্থা বিচ্ছিন্ন থাকায় এই ভিডিও নিয়ে অনেকের মনেই ধন্দ তৈরি হয়েছে। সত্যিই কী বাংলায় প্রধানমন্ত্রীকে চৌকিদার চোর হ্যায় বলে স্বাগত জানানো হয়েছিল? প্রসঙ্গত গত বছর লোকসভা নির্বাচনের সময়ে কংগ্রেস নরেন্দ্র মোদীর বিরুদ্ধে এই স্লোগান তৈরি করেছিল। সেই সময় তৃণমূল কংগ্রেস নেত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়-ও অনেক সভায় এই স্লোগান ব্যবহার করেছিলেন।

এশিয়ানেট নিউজ বাংলার তরফে এই ভাইরাল হওয়া ভিডিওটি নিয়ে তথ্যানুসন্ধান চালিয়ে দেখা গিয়েছে, ভিডিওটিতে 'চৌকিদার চোর হ্যায়' স্লোগান-টি সুপারইমপোজ করা হয়েছে, অর্থাৎ আসল ভিডিওর উপরে এই নকল অডিও চাপিয়ে দেওয়া হয়েছে। ২২ মে পশ্চিমবঙ্গের বসিরহাট কলেজের অডিটোরিয়ামে ঘূর্ণিঝড় আমফান নিয়ে বাংলার মুখ্যমন্ত্রী ও রাজ্যপালের সঙ্গে প্রধানমন্ত্রীর পর্যালোচনা বৈঠকের  পর বেরিয়ে আসার সময়ে তোলা। ঘটনাস্থলে উপস্থিত ছিলেন এশিয়ানেট নিউজ বাংলার প্রতিনিধি। তিনি জানিয়েছেন, 'চৌকিদার চোর হ্যায় নয়',  বরং 'জয় শ্রীরাম' বলে স্লোগান দিচ্ছিলেন উপস্থিত একাংশের জনতা। ওই স্লোগানে বাংলার মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়-কে উত্যক্ত করার চেষ্টা করেছিলেন। ওই ঘটনার সরাসরি সম্প্রচার করেছিল বাংলার অনেকগুলি সংবাদমাধ্যমই। সেখানেও ওই স্লোগানই শোনা গিয়েছে।

ভিডিওটির বিষয়ে বসিরহাটের পুলিশ সুপার কাঁকরপ্রসাদ বারুই-ও জানিয়েছেন, ভাইরাল হওয়া ভিডিওটি ভুয়ো। প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদীর সফরের দিন ওই স্থানে কেউই চোর স্লোগান তোলেননি। মোদীকে দেখে 'জয় শ্রীরাম' স্লোগান তুলেছিলেন কেউ কেউ কিন্তু তাতে উৎসাহ দেননি প্রধানমন্ত্রী। সবমিলিয়ে একটা সৌহার্দ্যের আবহ ছিল।