এক মাসেরও বেশি সময় ধরে দিল্লির উপকণ্ঠে চলছে কৃষক আন্দোলন। ইতিমধ্যেই বেশ কয়েকজন আন্দোলনকারীর মৃত্যু হয়েছে। আন্দোলনকারী কৃষকরা নিহতদের প্রতি শ্রদ্ধা জ্ঞাপনও করেছেন। সেখানে থেকে ভাইরাল হচ্ছে আন্দোলনকারীদের একাধিক ছবি। কিন্তু প্রশ্ন উঠছে সব ছবি বা ভিডিও কি সত্যি? এশিয়ানেট নিউজ বাংলার হাতে এসেছে তেমনই একটি ভিডিও যেখানে দেখা যাচ্ছে দিল্লির সিংহু বর্ডারে এক আন্দোলনকারী কৃষক আচকমাই পড়ে যান। তারপর তাঁকে বাঁচাতে ঘটনাস্থলে যায বাকি আন্দোলনকারী কৃষক আর পথচলতি মানুষ। পরবর্তীকালে সোশ্যাল মিডিয়ায় দাবি করা হয়েছে, প্রবল ঠান্ডার কারণে আন্দোলনকারী কৃষকের মৃত্যু হয়েছে। 

এই ঘটনা কি সত্যি? দেখে নিন সেই ভিডিও। 
বেশ কয়েকটি ভিডিও বার্তায় লেখা হয়েছে, দেখে নিনি সেই ভিডিওটি। সেখানে আপনি সারাসরি দেখতে পাবেন আন্দোলনকারী কৃষকদের কী ভাবে মৃত্যু হয়েছে। অনেকেই আবার লিখেছে ক্যামেরার সামনেই মৃত্যুর কোলে ঢলে পড়ল এক কৃষক। যাদের বিরুদ্ধে পিৎজা, বিরিয়ানি খেয়ে জিনস পরে বিএমডাবলু চড়ে আন্দোলন করার অভিযোগ উঠেছে, আজ তাদেরেই একজনের মৃত্যু হয়েছে প্রবল ঠান্ডায় খোলা আকাশের নিচে রাত কাটানোর জন্য। 

আসল সত্যিটা কী? 
দেড় মাসেরও বেশি সময় হতে চলল তিনটি কৃষি আইন প্রত্যাহার করার দাবিকে নিয়ে দিল্লির সীমানায় আন্দোলন চালিয়ে যাচ্ছেন পঞ্জাব ও হরিয়ানার কৃষকরা। এখনও পর্যন্ত প্রায় ৫৯ জন কৃষকের মৃত্যু হয়েছে আন্দোলনে সামিল হয়ে। ইতিমধ্যেই নিহত কৃষকদের প্রতি শ্রদ্ধা জানিয়ে শেষ বৈঠকে কৃষক নেতা ও কেন্দ্রীয় মন্ত্রীরা ২ মিনিট নীরবতা পালন করেছিলেন। কিন্তু ভিডিওতে যে কৃষককে দেখা যাচ্ছে সেই কৃষকের সত্যি মৃত্যু হয়ে - তাই খতিয়ে দেখেছে আমাদের ফ্যাক্ট চেক টিম।

 ফ্যাক্ট চেক টিমের তথ্য অনুসন্ধান

ফ্যাক্ট চেক টিমের তথ্য অনুসন্ধানে উঠে এসেছে বেশ কয়েকটি তথ্য। যেমন ভিডিওটি আপলোড করা হয়েছে ৩ জানুয়ারি ২০২১ সালে।  জ্ঞানদীপ সিং-এর ট্যুইটার হ্যান্ডেল থেকে তা প্রথম পোস্ট করা হয়। আর সেখানে জ্ঞানদীপ সিং লিথেছিলেন, এদিন আরও একজন কৃষক পড়ে যান আন্দোলন স্থান সংলগ্ন এলাকায়। তিনি এখনও সুস্থ রয়েছেন। প্রবল ঠান্ডার কারণে তিনি অসুস্থ হয়ে পড়েছিলেন। অসুস্থ আন্দোলনকারীর দ্রুত আরোগ্য কামনাও করেছেন তিনি। 


জ্ঞানদীপ সিং আরও একটি ভিডিও পোস্ট করেছেন, যাখানে তিনি বলেছেন, এক চিকিৎসকেরও বার্তা রয়েছে। আর সেখানে লাভেপ্রীত সিং নামে এক চিকিৎসক জানিয়েছেন অসুস্থ আন্দোলনকারী কৃষকের প্রাথমিক চিকিৎসা করা হয়েছে। আর বর্তমানে সেই কৃষক সুস্থ হয়েছে। তিনিই অসুস্থ কৃষকের চিকিৎসা করেছিলেন বলেও জানিয়েছেন।