সামনে এল সেরাম ইন্সটিটিউটের তৈরি করোনাভাইরাসের টিকা কোভিশিল্ডের প্রখম ছবি। ছোট্ট সাদা বোতল। আর সবুজ রঙের কাগজে টিকার নামের সঙ্গে রয়েছে প্রয়োজনীয় তথ্য। এর আগে এই কোভিশিল্ডের প্রথম ছবিটি নিজের টুইটার হ্যান্ডেল থেকে শেয়ার করেছিলেন সেরাম কর্তা আদার পুনেওয়ালা।

মঙ্গলবার খুব ভোর থেকেই পুনের সেরাম ইনস্টিটিউটের কারখানা থেকে কোভিশিল্ড বোঝাই করা তিনটি ট্রাক পুনে আন্তর্জাতিক বিমান বন্দরের উদ্দেশ্যে রওনা নেয়। ইতিমধ্যেই সেগুলি পৌঁছে গেছে দিল্লি, আমেদাবাদ সহ একাধিক গন্তব্যে। দেশের মোট ১৩টি স্থানে এদিনই পৌঁছে যাবে কোভিশিল্ড। শনিবার থেকে দেশজুড়ে শুরু হবে টিকাকরণ কর্মসূচি। সূত্রের খবর দুটি কার্গো বিমানসহ আটটি বাণিজ্য়িক বিমানে ভ্যাকসিনগুলি পুনে থেকে দেশের অন্যত্র পাঠান হয়েছে। প্রথম কার্গো ফ্লাইটটির গন্তব্য হল বিজয়ওয়াদা, ভূবনেশ্বর ও হায়রদারাবাদ।  দ্বিতীয় কার্গো বিমানটির গন্তব্য কলকাতা ও গুয়াহাটি। কেন্দ্রীয় সরকার ২০২১ সালে সেরামের থেকে ডোজ প্রতি ২০০ টাকা দিয়ে করোনা টিকা কেনার কথা হয়েছে। ইতিমধ্যেই সংস্থাটির সঙ্গে ৫.৬০ কোটি টাকার চুক্তি হয়েছে। চলতি বছর এপ্রিল মাসের মধ্যে ৪.৫০ কোটি ডোজে ওষুধ কেনার পরিকল্পনাও রয়েছে।  

এদিন কড়া নিরাপত্তার মধ্যে দিয়ে তিনটি তাপমাত্রা নিয়ন্ত্রিত ট্রাকে সেরাম ইনস্টিটিউট থেকে পুনে বিমান বন্দরের উদ্দেশ্যে রওনা দেয় করোনা টিকা। ট্রাকগুলিতে সবমিলিয়ে ৪৭৮টি বাক্স বহন করা হয়েছে। প্রতিটি বাক্সের ওজন ৩২ কোজি। পুনে বিমান বন্দর থেকেও সোশ্যাল মিডিয়ায় বার্তা দিয়ে জানিয়ে দেওয়া হয়েছে, করোনাভাইরাস হ্রাসের লক্ষ্যে তৈরি হচ্ছে গোটা দেশ। ভ্যাক্সিন তোলা হচ্ছে  বিমানে।