প্রয়াত হলেন দিল্লি প্রদেশ কংগ্রেসের সভাপতি তথা দিল্লির প্রাক্তন মুখ্যমন্ত্রী শীলা দিক্ষীত। মৃত্যুকালে তার বয়স হয়েছিল ৮১ বছর। শনিবার দিল্লির এস্কর্ট হাসপাতালে তাঁকে ভর্তি করানো হয়। দীর্ঘদিন ধরেই বার্দ্ধক্য জনিত রোগে আক্রান্ত ছিলেন তিনি। শরীর সবসময় ভালো যাচ্ছিল না। এই পরিস্থিতিও তিনি লোকসভা নির্বাচনে দলের হয়ে প্রচার করেছিলেন। শুক্রবার রাত থেকেই শ্বসকষ্ঠ জনিত রোগে কষ্ঠ পাচ্ছিলেন। শনিবার সকালে হাসপাতালে ভর্তি করেও শেষরক্ষা হয়নি। আইসিইউ-তে রাখা হলেও এদিন দুপুরে তাঁর মৃত্যু হয়। 

দিল্লির কংগ্রেসের নেতৃ-স্থানীয়দের মধ্যে বয়োজ্যেষ্ঠ ছিলেন শীলা দীক্ষিত। টানা ১৫ বছর ধরে দিল্লির মুখ্যমন্ত্রীর পদে দায়িত্ব সামলেছেন তিনি। কংগ্রেস সভানেত্রী সোনিয়া গান্ধীরও অত্যন্ত ঘনিষ্ঠ ছিলেন তিনি। 

এস্কর্ট ফোর্টিস হাসপাতালের ডিরেক্টর অশোক শেঠ জানিয়েছেন প্রাথমিক ভাবে তাঁর শারীরিক অবস্থা স্থিতিশীল ছিল। ৩.১৫ টা নাগাদ তিনি আরও একবার হৃদরোগে আক্রান্ত হন। যার ফলে সঙ্গে সঙ্গে তাঁকে ভেন্টিলেশনে দেওয়া হয়। দুপুর ৩.৫৫টা নাগাদ ভেন্টিলেশনে থাকাকালীন-ই তিনি শেষ নিঃশ্বাস ত্যাগ করেন। শীলা দীক্ষিতের প্রয়াণে কংগ্রেস টুইট বার্তায় শোকপ্রকাশও করে। শীলা দীক্ষিত-কে আজীবন কংগ্রেসী আখ্যা দিয়ে বলা হয়েছে তাঁর ১৫ বছরের মুখ্যমন্ত্রিত্ব দিল্লির চেহারা পাল্টে গিয়েছিল। প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী, দিল্লির মুখ্যমন্ত্রী আরবিন্দ কেজরিওয়াল, প্রাক্তন প্রধানমন্ত্রী মনমোহন সিংহ, প্রাক্তন কংগ্রেস সভাপতি রাহুল গান্ধী-ও তাঁদের শোক বার্তা পাঠিয়েছেন।