গত ১৫ জুন, পূর্ব লাদাখের গালওয়ান উপত্যকায় চিনা সেনার বিরুদ্ধে এক রক্তক্ষয়ী সংঘর্ষে ২০ জন ভারতীয় সেনা জওয়ান শহিদ হয়েছিলেন। ভারতীয় সেনাবাহিনীর পক্ষ থেকে, শনিবার লাদাখের দৌলত-বেগ-ওল্ডিতে তাঁদের নামে একটি স্মৃতিসৌধ স্থাপন করা হল। এই সৌধে শহিদ জওয়ানদের নামের সঙ্গে সঙ্গে ১৫ জুন রাতের স্নো লেপার্ড অভিযানের সম্পূর্ণ বিবরণ রয়েছে।

১৫ জুন রাতে গালওয়ান উপত্যকায় চিনা ও ভারতীয় সৈন্যদের মধ্যে হিংসাত্মক সংঘর্ষ বেধেছিল। গালওয়ান উপত্যকায় পেট্রোলিং পয়েন্ট ১৪-র কাছে অবৈধভাবে একটি চিনা চেকপয়েন্ট নির্মাণের বিরুদ্ধে প্রতিবাদ জানিয়েছিল। তারপর চিন সেনা অতর্কিতে পাথর, লোহার রড ইত্যাদি অপ্রচলিত অস্ত্র দিয়ে হাংলা চালিয়েছিল ভারতীয় সেনাদের উপর। এই সংঘর্ষে ১৬তম বিহার রেজিমেন্টের কমান্ডিং অফিসার কর্নেল বি সন্তোষ বাবু সহ ১৯ জন সেনা শহিদ হন। নয়াদিল্লির ন্যাশনাল ওয়ার মেমোরিয়াল বা জাতীয় যুদ্ধ স্মৃতিসৌধেও এই বীর সেনাদের নাম খোদাই করা হবে।

ওই রাতের সংঘর্ষে চিনেরও বেশ কয়েকজন সেনা নিহত হয়েছিল বলে খবর। তবে সরকারিভাবে চিন তাদের নিহত সৈন্যের সংখ্যাটা কখনও জানায়নি। মার্কিন গোয়েন্দা প্রতিবেদনে বলা হয়েছিল চিনা পিএলএ-র অন্তত ৩৫ জন সদস্য নিহত হয়েছিল। পরে চিনা সোশ্যাল মিডিয়ায় প্ল্যাটফর্মে একটি ছবি ফাঁস হয়, যেটি গালওয়ানে হত চিনা সেনাদের সমাধিক্ষেত্র বলে দাবি করা হয়েছিল। সেখানে সার সার দিয়ে কবরের পাশে কালো পাথরে সেই সেনাদের নাম ও রেজিমেন্টের বিষয়ে লেখা ছিল। গালওয়ানের এই ঘটনা ভারত-চিন সম্পর্কের রসায়নই পাল্টে দিয়েছে।