হাইকোর্টের নির্দেশে দুর্গাপূজার মণ্ডপে দর্শনার্থীদের প্রবেশ নিষিদ্ধ হলেও বাংলায় পুজোর প্রস্তুতি রয়েছে পুরো দমে। সেইসঙ্গে পাখনা মেলেছে শিল্পীদের কল্পনাও। দেবী দুর্গার 'পরিযায়ী মা'-এর অবতার ভাইরাল হওয়ার পরে, এবার দেখঘা গেল সাদা কোট পরে চিকিৎসকরূপী মা দুর্গাকে করোনাসুর বধ করতে।

করোনা মহামারি ছড়িয়ে পরার পর গোটা বিশ্বেই ডাক্তারদের সাদা কোট পরা ঈশ্বর বলা হচ্ছিল। দুর্গাপূজাকে কেন্দ্র করে সেই রূপই মূর্ত হল। দেবীর এই উপস্থাপনে, শুধু দেবী দুর্গার চিকিৎসকের রূপই নয়, তাঁর পুত্র কন্যা - লক্ষ্মী, সরস্বতী, কার্তিক এবং গণেশ-ও একেকজন মহামারির সময়ের একেকটি অপরিহার্য পরিষেবার কর্মী হিসাবে ধরা দিয়েছেন। দেবী দুর্গার গায়ে শুধু চিকিত্সকের সাদা কোট রয়েছে তা নয়, প্রথাগত ত্রিশূল-এর পরিবর্তে তাঁর হাতে রয়েছে ভ্যাকসিন। আর তাই দিয়েই তিনি বধ করছেন করোনারূপী মহিষাশুর-কে। গণেশ ও কার্তিক হলেন যথাক্রমে পুলিশ অফিসার এবং স্যানিটাইজেশন কর্মী। আর লক্ষ্মী এবং সরস্বতিকে দেখা গিয়েছে নার্স এবং স্বাস্থ্যসেবা কর্মী রূপে।

কলকাতার কোথাকার প্যান্ডেলে কোন শিল্পী এইভাবে অপরিহার্য পরিষেবা কর্মীদের ঈশ্বরসুলভ পরিষেবাকে সম্মান জানালেন, তা জানা যায়নি। তবে তাঁদের এই অবতার-এর ছবিগুলি সোশ্যাল মিডিয়ায় শেয়ার করতেই তা ভাইরাল হয়েছে। এমনকী কংগ্রেস সাংসদ শশী থারুর-ও টুইটারে এই অভিনব দুর্গা মূর্তির ছবি শেয়ার করেছেন। সৃজনশীলতার জন্য কলকাতার ওই অজানা ভাস্করকে তিনি সেলাম জানিয়েছেন।

এর আগে, ভাইরাল হয়েছিল দেবী দুর্গার পরিযায়ী মা অবতার। মৃতশিল্পী পল্লব ভৌমিক এবং ঋতু দাস করোনাভাইরাস মহামারির কারণে চূড়ান্ত সমস্যার মুখোমুখি হওয়া অভিবাসী মায়েদের শ্রদ্ধা জানাতে দেবী দুর্গার সেই রূপ মূর্ত করে তুলেছিলেন। সেই মূর্তি একদিকে যেমন দারুণ প্রশংসা কুড়িয়েছে, তেমনই একাংশের হিন্দু আবার দেবীর 'রূপ বিকৃতি' নিয়ে প্রশ্ন তুলেছেন।