বিশ্বের কোথাও নাকি এখন চিনকে এড়িয়ে ব্যবসা করা যায় না? বুধবার বার্ষিক সাধারণ সভায় একের পর এক বড় ঘোষণায় সেই ধারণা ভেঙে দিলেন রিলায়েন্স ইন্ডাস্ট্রিজ-এর চেয়ারম্যান মুকেশ অম্বানি। বিশ্বের বৃহত্তম সার্চ ইঞ্জিন জায়ান্ট গুগল-এর টেলিকম এবং ডিজিটাল শাখা অংশীদার হতে চলেছে রিলায়েন্স জিও-র। এখানেই শেষ নয়, চিনা প্রযুক্তিগত সহায়তা এড়িয়ে গুগলের সঙ্গে হাত মিলিয়ে ফাইভজি স্মার্টফোন তৈরির কথাও জানিয়েছেন মুকেশ অম্বানি।

এদিন করোনাভাইরাস মহামারির কারণে রিলায়েন্সের ৪৩তম বার্ষিক সাধারণ সভাটি হয় ভিডিও কনফারেন্সে। সেখানেই রিলায়েন্স ইন্ডাস্ট্রিজ-এর চেয়ারম্য়ান জানান, রিলায়েন্স জিও-র ৭.৭ শতাংশ শেয়ার কিনতে চলেছে সুন্দর পিচাই-এর গুগল সংস্থা। এর জন্য তারা জিও-র বিভিন্ন প্ল্যাটফর্মে ৩৩,৭৩৭ কোটি টাকা বিনিয়োগ করবে। একদিন আগেই ডিজিটাল ভারত গড়তে আগামি ৫ থেকে ৭ বছরের মধ্যে ভারতে ১০০০ কোটি মার্কিন ডলার বা ৭৫০০০ কোটি টাকা লগ্নি করার কথা জানিয়েছিল গুগল।

এখানেই শেষ নয়, এদিন মুকেশ অম্বানি যা বলেছেন, তাতে আগামী দিনে জিও ও গুগল সংস্থা টেলিকম শিল্পে ঘনিষ্ঠভাবে কাজ করবে, এরকমই ইঙ্গিত পাওয়া গিয়েছে। রিলায়েন্স ইন্ডাস্ট্রিজ-এর চেয়ারম্যান জানিয়েছেন, এখনও পর্যন্ত ১০০ মিলিয়নের বেশি জিও ফোন বিক্রি হয়েছে। তবে ইদানিং ফিচার ফোন ছেড়ে স্মার্ট ফোন নেওয়ার প্রবণতা ক্রমে বাড়ছে। তাই সংস্থার বর্তমান ব্যয়ের একটি অংশ ব্যবহার করে একটি এন্ট্রি লেভেল ফোরজি ফোন এমনকি একটি ফাইভজি স্মার্ট ফোন-ও ডিজাইন করার কথা জানিয়েছেন অম্বানি। আর এই অ্যান্ড্রয়েড ভিত্তিক স্মার্টফোন অপারেশন সিস্টেম তৈরিতে জিও-র গুরুত্বপর্ণ অংশীদার হবে গুগল।

অম্বানি এদিন আরও জানিয়েছেন জিও সম্পূর্ণ দেশিয় উপায়ে একটি ফাইভজি প্রযুক্তির নকশা ও বিকাশ করেছে। ভারত সরকারের পক্ষ থেকে স্পেকট্রাম পেলেই পরের বছর থেকে গ্রাহকদের জন্য চালু করে দেওয়া হবে এই 'মেড ইন ইন্ডিয়া' ফাইভজি। ভারতে চালু করার পর বিশ্বের অন্যান্য টেলিকম অপারেটরদের কাছেও ফাইভজি প্রয়ুক্তির প্রধান রফতানিকারী হয়ে উঠতে পারে জিও।