২০১৯-এর লোকসভা নির্বাচনে নিরঙ্কুশ জয়ের পর প্রথম বাজেট পেশ করতে চলেছে মোদী সরকার। দেশের প্রথম মহিলা অর্থমন্ত্রীর কাছ থেকে প্রত্যাশাটাও অনেকটাই বেশি। দেশের ধীর গতিসম্পন্ন অর্থনীতিতে নতুন কী চমক আনতে চলেছেন নির্মলা সীতারমণ সেই দিকেই এখন নজর সকলের। এক ঝলকে দেখে নেওয়া যাক, অর্থনীতির দলে কে কে রয়েছেন-

১) কে সুব্রহ্মণ্যন, মুখ্য অর্থনৈতিক উপদেষ্টা- ইউনিভার্সিটি অব শিকাগো বুথ স্কুল থেকে ফাইন্যান্সিয়াল ইকো নমিক্স-এ ডক্টরেট করেছেন মুখ্য় অর্থনৈতিক উপদেষ্টা কে সুব্রহ্মন্যম। এবার সংসদে তিনি প্রথমবার অর্থনৈতিক বাজেট পেশ করতে চলেছেন। ধীর গতিসম্পন্ন অর্থনীতির সমাধানের জন্য এবারের বাজেটে তাঁর ইনপুট বিশেষভাবে গুরুত্বপূর্ণ বলে মনে করা হচ্ছে। 

২) সুভাষ গর্গ, কেন্দ্রীয় অর্থ সচিব- বাজেট বিষয়ে একজন অভিজ্ঞ ব্যক্তিত্ব গর্গ এযাবৎ একাধিক বাজেট অধিবেশন দেখেছেন। সাম্প্রতিককালে অর্থনীতি যেসব কঠিন চ্যালেঞ্জের সম্মুখীন হয়েছে তার মধ্যে অর্থনীতির ধীর গতি, ব্যক্তিগত বিনিয়োগেরর ক্ষয়ক্ষতির নানা বিষয়ে তাঁর ইনপুটও অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ বলে মনে করা হচ্ছে। 

৩) অজয় ভূষণ পান্ডে, রাজস্ব সচিব- অর্থনৈতিকক্ষেত্রে রাজস্ব ঘাটতির মতো গুরুত্বপূর্ণ বিষয়ে আলোচনী করার বিষয়ে তাঁর অবদান বিশেষ গুরুত্বপূর্ণ। ধীর অর্থনীতির ক্ষেত্রে রাজস্ব নিয়ে উদ্বেগ থাকবেই, তাই সেই বিষয়ে তাঁর বাজেটে তিনি যে একটা অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ ভুমিকা পালন করছেন সেকথা বলাই যায়। 

৪) জে সি মুর্মু, ব্যয় সচিব- প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদীর ঘনিষ্ঠ হিসাবে পরিচিত জে সি মুর্মু হলেন গুজরাত ক্যাডারের একজন আইএএস অফিসার। ব্যয়নির্বাহের বিষয়টি তিনি খুবই গুরুত্বসহকারে দেখভাল করেন।
 
৫) রাজীব কুমার, আর্থিক পরিষেবা সচিব- রাষ্ট্র-দ্বারা পরিচালিত ব্যাঙ্কগুলি ঋণে জর্জরিত সেগুলির একত্রীকরণ এবং মোদী সরকারের একাধিক প্রকল্প রূপায়ণের ক্ষেত্রে গুরুত্বপুর্ণ ভুমিকা পালন করেছিলেন রাজীব কুমার। এবারের বাজেটেও বিশেষ ভুমিকা পালন করছেন তিনি। 

৬) অতনু চক্রবর্তী, ডিপার্টমেন্ট অফ ইনভেস্টমেন্ট অ্যান্ড পাবলিক অ্যাসেট ম্যানেজমেন্ট সচিব-  ১৯৮৫ সালের গুজরাত ক্যাডারের আইএএস অফিসার অতনু চক্রবর্তী তাঁর উদ্ভাবনী চিন্তার দ্বারা কেন্দ্রীয় সরকারের একাধিক প্রকল্পে সাফল্য অর্জন করেছেন তিনি।