সোমবার জম্মু ও কাশ্মীর পুনর্গঠন বিল সংসদে পেশ করেন স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী অমিত শাহ। নয়া এই বিলে, সংবিধানের ৩৭০ ধারা অনুসারে জম্মু ও কাশ্মীরকে দেওয়া বিশেষ অধিকার বাতিল করে দেওয়ার কথা বলা হয়েছে। এর পাশাপাশি কেন্দ্রীয় সরকারের তরফ থেকে ৩৫এ ধারায় বর্ণিত রাজ্যের স্থায়ী বাসিন্দাদের বিশেষ সুযোগ সুবিধার পাশাপাশি তাঁদের নির্বাচনে অংশগ্রহণের যে অধিকার প্রদান করা হয়েছে তাও বাতিল করার প্রস্তাব দেওয়া হয়েছে। আর এরপরই উত্তাল হয়ে ওঠে সংসদ। প্রস্তাবিত এই বিলের বিরোধীতা করেন বিরোধীরা।

জম্মু ও কাশ্মীর নিয়ে দেশজুড়ে চলতে থাকা চাপানউতোরের কারণে প্রত্যেকটি রাজ্যকে সর্বোচ্চ নিরাপত্তা ব্যবস্থা বজায় রাখার নির্দেশ দেওয়া হল কেন্দ্রীয় স্বরাষ্ট্র মন্ত্রকের তরফ থেকে। নিরাপত্তা বাহিনীকেও সর্বাধিক সতর্কতা অবলম্বন করার নির্দেশ দেওয়া হয়েছে। কেন্দ্রীয় সরকারের তরফে আরও জানানো হচ্ছে,জম্মু ও কাশ্মীরের স্থানীয় বাসিন্দা এবং সেখানে পড়তে আসা ছাত্র-ছাত্রীদের প্রতিও যাতে বিশেষ সুরক্ষার ব্যবস্থা করা হয়।  

কাশ্মীর পুনর্গঠন প্রস্তাব বিলে উত্তাল সংসদ, সংবিধানের কপি ছিঁড়ে হল প্রতিবাদ

স্বরাষ্ট্র মন্ত্রকের তরফে জারি করা নির্দেশিকায় আরও বলা হয়েছে, শান্তি শৃঙ্খলার বিঘ্ন এবং আইন ভাঙার বিরুদ্ধে সাধারণ মানুষের মধ্যে সচেতনতা গড়ে তোলার জন্য রাজ্য সরকার এবং কেন্দ্রশাসিত অঞ্চলেগুলিকে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নিতে হবে। পাশাপাশি সাধারণ মানুষকে সংবেদনশীল করে তোলারও ব্যবস্থা নিতে হবে। 

এখানেই শেষ নয়, এর পাশাপাশি, গুজব, মিথ্যা ও ভুয়ো খবরের প্রচার রুখতে যথাযথ ভুমিকা পালন করতে হবে বলেও নির্দেশ দেওয়া হয় স্বরাষ্ট্র মন্ত্রকের তরফে। সেইসঙ্গে, শান্তি বিনষ্ট করতে সোশ্যাল মিডিয়াতেও যাতে কোনওরকম ভুয়ো খবর প্রকাশিত না হয় সেই বিষয়টির ওপরেও নজর দিতে হবে বলে জানানো হয়েছে স্বরাষ্ট্র মন্ত্রক প্রকাশিত ওই নির্দেশিকায়।