মনে হতে পারে, বিশ্বে কোনওদিন করোনাভাইরাস নামে কোনও বিপদ আসেইনি। নেই কোনও আর্থিক সংকট। রুপোর ইঁট দিয়ে ভিত গাঁথা থেকে শুরু করে ৩০০ বিশিষ্ট ব্যক্তিকে আমন্ত্রণ জানানো, সব মিলিয়ে করোনা মহামারির চরম সংকটের মধ্যে মহা সমারোহে চলছে অযোধ্যার রাম মন্দি-এর 'ভূমি পূজন' অনুষ্ঠানের প্রস্তুতি। প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী তো বটেই, এই মহা আয়োজনে ডাক পেতে চলেছেন বিজেপি ও বিজেপি ঘনিষ্ঠ বিভিন্ন দলের নেতা-নেত্রীরা, এমনকী বিজেপির সঙ্গ ত্যাগ করা শিবসেনা প্রধান তথা মহারাষ্ট্রের মুখ্যমন্ত্রী উদ্ধব ঠাকরে-ও।

আগেই অযোধ্যার পুরোহিতরা ঘোষণা করেছেন, প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী ৫ অগাস্ট রাম মন্দির নির্মাণের ভিত্তি প্রস্তর স্থাপন করবেন। জানা গিয়েছে, ৩ অগাস্ট থেকেই রাম জন্মভূমিতে বৈদিক রীতি মেনে তিন দিন ব্যাপী বিস্তৃত আচার-অনুষ্ঠান চলবে। ৪ অগাস্ট হবে 'রামাচর্য পূজা'। আর ৫ অগাস্ট-ই সেই দিন। ওই দিন দুপুর সোয়া বারোটায় অনুষ্ঠিত হবে 'ভূমি পূজা'।

'ভূমি পূজা' অনুষ্ঠানের সময় গর্ভগৃহের বিতরে স্থাপন করা হবে পাঁচটি রুপোর ইট। এর প্রথমটি রাখবেন প্রধানমন্ত্রী মোদী। এই পাঁচটি ইট হিন্দু পুরাণ অনুসারে পাঁচটি গ্রহের প্রতীক বলে জানানো হয়েছে। বিশ্ব হিন্দু পরিষদ বা ভিএইচপি-র প্রস্তাবিত নাগারা রীতির বিষ্ণু মন্দিরের অনুকরণেই এই রাম মন্দিরের নকশা করা হয়েছে। তা মেনেই 'গর্ভ গৃহ'টি হবে অষ্টভুজাকৃতির। তবে আগের তুলনায় মন্দিরের দৈর্ঘ্য, প্রস্থ এবং উচ্চতা বাড়ানো হয়েছে। এছাড়া তিনটির পরিবর্তে পাঁচটি গম্বুজ তৈরির সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে। মন্দিরের মোট আয়তন আগে বাবা হয়েছিল ৩৮,০০০ বর্গফুটের মতো হবে। এখন পরিবর্ধিত নকশায় অনুমান করা হচ্ছে আয়তন দাঁড়াবে ৭৬,০০০ থেকে ৮৪,০০০ বর্গফুট।

এদিকে ৫ অগাস্ট ভিত্তি প্রস্তর স্থাপন করতে এলে এটিই হবে অযোধ্যায় রাম মন্দির গড়ার রায় বের হওযার পর মোদীর প্রথম রামজন্মভূমি সফর। এছাড়া আমন্ত্রিতদের মধ্যে থাকবেন কেন্দ্রীয় স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী অমিত শাহ, কেন্দ্রীয় প্রতিরক্ষা মন্ত্রী রাজনাথ সিং, আরএসএস প্রধান মোহন ভাগবত, বিহারের মুখ্যমন্ত্রী নিতিশ কুমার এবং অন্যান্য আরও বেশ কয়েকটি রাজ্যের মুখ্যমন্ত্রীরা। এমনকী রামমন্দির আন্দোলনে শিবসেনার অবদান স্বীকার করে ডাকা হবে উদ্ধব ঠাকরে কে। করোনা মহামারির জেরে ধর্মীয় জমায়েত নিষিদ্ধ হলেও, এই অনুষ্ঠানে সব মিলিয়ে প্রায় ৩০০ জনকে আমন্ত্রণ করা হতে পারে বলে জানা যাচ্ছে।