গত ৯ নভেম্বর অযোধ্যা মামলার রায় দিয়েছে সুপ্রিম কোর্ট। বিতর্কিত ২.৭৭ একর জমিতে রামমন্দির নির্মাণের নির্দেশ দেওয়ার পাশাপাশি কেন্দ্র অথবা উত্তরপ্রদেশ সরকারকে অযোধ্যারই কোনও গুরুত্বপূর্ণ এলাকায় মসজিদ গডড়ার জন্য ৫ একর জমি দেওয়ার নির্দেশ দিয়েছে আদালত। এই পাঁচ একর জমি নিয়েই শুরু হয়েছে দ্বন্দ্ব।

অযোধ্যা মামলার অন্যতম পক্ষ ছিল উত্তরপ্রদেশ সুন্নি ওয়াকফ বোর্ড। মঙ্গলবারই সুন্নি বোর্ড অযোধ্যা রায় পুনর্বিবেচনার আবেদন না করার সিদ্ধান্ত নিয়েছে। কিন্তু, আদালতের নির্দেশ মতো মসজিদ গড়তে পাঁচ একর জমি তারা নেবে কি নেবে না, সেই সিদ্ধান্তটা এখনও ঝুলে রয়েছে। বোর্ডের অনেক সদস্যরি মত, মসজিদ তৈরির জন্য জমি ভিক্ষা চাওয়া হয়নি। মামলা ছিল, বিতর্কিত জমির মালিকানা নিয়ে। তাই এই মসজিদ ভেঙে জমিদান, গ্রহণ করার মানে নেই।

এই অবস্খায় বুধবার, উত্তরপ্রদেশ শিয়া ওয়াকফ বোর্ডের পক্ষ থেকে ওই জমিতে মসজিদ নয়, বিকল্প স্থাপনার প্রস্তাব এল। শিয়া বোর্ডের চেয়ারম্যান ওয়াসিম রিজভি বলেছেন, সুন্নি বোর্ড ওই জমি না নিতে চাইলে শিয়া বোর্ড ওই জমি পাওয়ার জন্য সরকারের কাছে আবেদন করবে। জমি হাতে পেলে সেখানে একটি হাসপাতাল গড়তে চায় উত্তরপ্রদেশ শিয়া ওয়াকফ বোর্ড, যেখানে সব ধর্মের মানুষ চিকিৎসা করাতে পারবেন।

অযোধ্যায় মুসলিম পক্ষকে দেওয়া পাঁচ একর জমিতে হাসপাতাল বানানোর প্রস্তাব এর আগে দিয়েছিলেন বাংলাদেশের বিতর্কিক লেখিকা তসলিমা নাসরিন-ও। তিনি অবশ্য বলেছিলেন, তিনি রায় দিলে বিতর্কিত জমিতে রামমন্দির নয়, একটি আধুনিক বিজ্ঞানের স্কুল গড়ার নির্দেশ দিতেন।     

আদালতের রায় নিয়ে সুন্নি ওয়াকফ বোর্ডের অসন্তুষ্টি থাকলেও, শিয়া বোর্ড কিন্তু রায়কে স্বাগতই জানিয়েছে। রামমন্দির নির্মামে অর্থ অনুদান থেকে সবরকম সহায়তা করতে তাঁরা রাজি বলে আগেই জানিয়েছিলেন ওয়াসিম রিজভি।