উৎসবের মরশুমে চোখে জল আনছে পেঁয়াজের দাম। বর্তমানে ভারতে বেশ কয়েকটি শহরে পেঁয়াজের দাম ক্রমশই উর্ধ্বমুখী। এখনই পশ্চিমবঙ্গ, কেরলসহ  বেশ কয়েকটি রাজ্যে খোলা বাজারে পেঁয়াজ বিক্রি হচ্ছে ৮০-১২০ টাকা কিলোদরে। নভেম্বর মাসে পেঁয়াজের দাম আরও বাড়বে বলেও মনে করেছেন বিক্রেতারা। পাল্লা দিয়ে  বাড়ছে সবজিপাতির দাম। বাজারে গিয়ে সমস্যায় পড়তে হচ্ছে আম জনতাকে।

নভেম্বর মাসের মাঝামাঝি সময়ে মহারাষ্ট্র, রাজস্থান আর মধ্য প্রদেশের কয়েকটি এলাকায় নতুন পেঁয়াজ উঠবে। আর সেগুলি বাজারে না আসা পর্যন্ত পেঁয়াজের দাম বাড়বে বলেও মনে করেছিল ব্যবসায়ীরা। নভেম্বর মাস পর্যন্ত পেঁয়াজের দাম চড়তে থাকবে বলেই অশনি সংকেত শুনিয়েছেন তাঁরা। পেঁয়াজের সরবরাহ কম ছিল চলতি বছর। আর অক্টোবরে মহারাষ্ট্র আর  মধ্য প্রদেশের বৃষ্টির কারণে চাষের ক্ষতি হয়েছে। সেই কারণেই দাম বাড়ছে। গত বছরও এভাবেই পেঁয়াজের দাম চড়েছিল। 

এশিয়ার বৃহত্তম পেঁযাজের বাজার মহারাষ্ট্রের লাসালগাঁওতে। বৃহস্পতিবার সেখানে কুইন্টাল প্রতি পেঁয়াজ বিক্রি হয়েছিল ৪ হাজার ৮০১ টাকা থেকে  ৭ হাজার ৫০ টাকা কিলোদরে। লাসালগাঁও-এর কৃষি বিপণন কমিটির সচিব জানিয়েছেন বৃষ্টির কারণে উৎপাদনে ঘাটতি রয়েছে। আর সেই দাম বাড়ছে। তিনি আরও বলেছেন, সাধারণত এই সময়মে ১২ হাজার থেকে ১৫ হাজার কুইন্টাল পেঁয়াজ মজুত থাকে। কিন্তু চলতি বছর মাত্র ৪ হাজার কুইন্টাল পেঁয়াজ মজুত রয়েছে। 

রাজস্থান, পঞ্জাব, হরিয়ানা, উত্তর প্রদেশসহ একাধিক রাজ্যেই পেঁয়াজের দাম বেড়েছে। মহারাষ্ট্রে কিলো প্রতি পেঁয়াজের দাম ১০০ টাকা। হিমাচলের এক গৃহিনী জানিয়েছেন সেখানে দাম এতটাই বেড়েছে যে প্রয়োজন ছাড়া তাঁরা রান্নায় পেঁয়াজের ব্যবহার করছেন না। পাশাপাশি হোটেল রেস্তোঁরাগুলিতেও পেঁয়াজের ব্যবহার কমানো হয়েছে। অধিকাংষ জায়গায় ব্যবসায়ীদের অভিযোগ তাঁরা মহারাষ্ট্রে নাসিক থেকে প্রয়োজনীয় পেঁয়াজ পাচ্ছেন না। তাই চড়া দামেই বিক্রি করতে হচ্ছে পেঁয়াজ।