বৃহস্পতিবারই দেশে আক্রান্তের সংখ্যা ৯ হাজারের গণ্ডি টপকে গিয়েছিল। সেই রেকর্ড বজায় থাকল শুক্রবারও। গত ২৪ ঘণ্টায় দেশে আক্রান্তের সংখ্যা ৯,৮৫১। যা এখনও পর্যন্ত দৈনিক সংক্রমণের সংখ্যায় এদেশে সর্বোচ্চ। 

 

 

স্বাস্থ্য মন্ত্রকের দেওয়া পরিসংখ্যান অনুযায়ী শুক্রবার সকাল পর্যন্ত ভারতে করোনা আক্রান্তের সংখ্যা ২ লক্ষ ২৬ হাজার ৭৭০ জন। গত ২৪ ঘণ্টা. করোনা প্রাণ কেড়েছে ২৭৩ জনের। ফলে দেশে কোভিড ১৯ রোগে মৃতের সংখ্যা বেড়ে হয়েছে  ৬,৩৪৮।

ভারতে এখনও পর্যন্ত করোনা মুক্ত হয়েছেন ১ লক্ষ ৯ হাজার ৪৬২ জন। ফলে দেশে বর্তমানে সক্রিয় আক্রান্তের সংখ্যা ১ লক্ষ ২০ হাজার ৯৬০। 

দেশের মোট করোনা আক্রান্তের ২০ শতাংশই মুম্বইবাসী, দিল্লিতে আক্রান্তের সংখ্যা ছাড়াল ২৫ হাজার

বর্ণবিদ্বেষের শিকার জর্জ ফ্লয়েড নাকি আক্রান্ত ছিলেন করোনায়, চাঞ্চল্যকর তথ্য ময়নাতদন্ত রিপোর্টে

নিজের সিদ্ধান্ত থেকে এবার পিছু হটল 'হু', ফের শুরু হচ্ছে হাইড্রোক্সিক্লোরোকুইনের ক্লিনিক্যাল ট্রায়াল

বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার দেওয়া তথ্য অনুযায়ী বর্তমানে ভারত করোনা আক্রান্ত দেশগুলির মধ্যে সপ্তম স্থানে রয়েছে। এদেশে সবচেয়ে করোনা প্রবণ রাজ্য মহারাষ্ট্রে ইতিমধ্যে আক্রান্তের সংখ্যা ৭৭ হাজার ছাড়িয়ে গিয়েছে।  গত ২৪ ঘণ্টায় রাজ্যটিতে আক্রান্ত হয়েছেন ২,৯৩৩। মহারাষ্ট্রে করোনা প্রাণ কেড়েছে ২,৭১০ জবনের। এদিকে মহারাষ্ট্রের স্বাস্থ্য দফতর জানাচ্ছে, এখনও পর্যন্ত রাজ্যটিতে ৫,১০,১৭৬ করোনা পরীক্ষা হয়েছে। সুস্থ হয়ে বাড়ি ফিরেয়েছন ৩৩,৬৮১ জন।

করোনা আক্রান্ত রাজ্যগুলির মধ্যে ভারতে দ্বিতীয় স্থানে রয়েছে তামিলনাড়ু। রাজ্যটিতে আক্রান্তের সংখ্যা ২৭ হাজার ছাড়িয়েছে। গত ২৪ ঘণ্টায় সংক্রমণের শিকার হয়েছে ১,৩৮৪ জন। তামিলনাড়ুতে করোনা প্রাণ কেড়েছে ২২০ জনের। করোনা প্রবণ রাজ্য হিসাবে তৃতীয় স্থআনে রয়েছে জাতীয় রাজধানী দিল্লি। এখাানে আক্রান্তের সংখ্যা ২৫ হাজার ছাড়িয়েছে। রাজস্থানেও বাড়ছএ সংক্রমণ। ইতিমধ্যে আক্রান্তের সংখ্যা ৯ হাজার ৬০০ ছাড়িয়েছে। 

এদিকে গত সোমবার থেকে দেশে শুরু হয়েছে আনলক ১। তার অংশ হিসাবে ৮ জুন থেকে খুলে যাচ্ছে মল, হোটেল, রেস্তোরাঁ। তারজন্য নয়া গাইডলাইন বৃহস্পতিবার প্রকাশ করল স্বরাষ্ট্রমন্ত্রক। এদিকে  শ্রম কমিশন জানাচ্ছে, ইতিমধ্যে দেশের ৪৬ শতাংশ পরিযায়ী শ্রমিককে তাদের বাড়ি পাঠান সম্ভব হয়েছে।