বুধবার একেবারে স্পষ্ট ভাষায় আন্তঃধর্ম বিবাহ ও আন্তঃজাত বিবাহের পক্ষে জোরালো সমর্থন এল সুপ্রিম কোর্ট থেকে। আদালতের মতে এতে করে সমাজতন্ত্রের কাঠামো আরও দৃঢ় হবে। আর তাই এই ধরণের সম্পর্ক আরও বেশি হলেই সমাজের ভাল বলে জানিয়েছে আদালত।

এদিন ছত্তিশগড়ে এক হিন্দু মহিলার সঙ্গে মুসলিম পুরুষের বিবাহ নিয়ে মামলার শুনানি ছিল সুপ্রিম কোর্টে। ওই মুসলিম পুরুষ প্রথমে ধর্মান্তরিত হন, তারপরই তাঁদের বিয়ে হয়। এই নিয়ে ওই মহিলার বাবার অভিযোগ ছিল এই বিয়ে মিথ্যা। এর পিছনে একটি গোষ্ঠী রয়েছে। ভিন ধর্মে বিয়ের নামে তাদের অন্য উদ্দেশ্য রয়েছে। এর আগে উচ্চ আদালতে ধাক্কা খেয়ে সুপ্রিম কোর্টে আবেদন করেছিলেন ওই মহিলার বাবা। কিন্তু সর্বোচ্চ আদালতও তাঁকে ফিরিয়েই দিল।

বিচারপরতি অরুণ মিশ্র ও বিচারপতি এমআর শাহ-এর বেঞ্চ সাফ জানায়, আদালত ভিন ধর্মের বিবাহের প্রতি বিমুখ নয়। হিন্দু-মুসলিম বিবাহও গ্রহণযোগ্য। যদি কেউ আইন মেনে বিয়ে করে থাকে, তাহলে অসুবিধা কোথায়? বরং আদালত চায় তথাকথিত উচ্চ বর্ণ ও নিম্নবর্ণের মধ্যেও বিবাহ হোক।

আদালত আরও বলে এই মামলা শোনা হচ্ছে শুধুমাত্র ওই দম্পতির স্বার্থ রক্ষা করতে। বিশেষত ওই মহিলার ভবিষ্যত বিষয়ে তাদের উদ্বেগ ছিল। তাদের সম্পর্কটা প্রকৃত সম্পর্ক কিনা সেটাই তারা নিশ্চিত করতে চেয়েছিলেন। শীর্ষ আদালত থেকে ওই পুরুষকে অনুগত স্বামী এবং মহান প্রেমিক হয়ে ওঠার পরামর্শ দেওয়া হয়েছে।