পাকিস্তানি লাস্যময়ীর ফাঁদে পা দিয়ে গ্রেফতার হলেন কাশ্মীরের এক ব্যক্তি। মঙ্গলবার জম্মু-কাশ্মীর পুলিশ জানিয়েছে, ফেসবুকে ফাঁদ পেতেছিল ওই পাকিস্তানি যুবতী। তার শিকার হওয়া ওই ব্যক্তিকে গুপ্তচরবৃত্তির জন্য গ্রেফতার করা হয়েছে।

পুলিশ আরও জানিয়েছে, ওই ব্যক্তির নাম রাকেশ কুমার। তিনি কাশ্মীরের সীমান্তবর্তী শহর আর্নিয়া-র বাসিন্দা। তিনি ওই পাক যুবতীর প্রেমে হাবুডুবু খেয়ে, কাশ্মীরের কোথায় কোথায় কীরকম নিরাপত্তা ব্যবস্থা নেওয়া হয়েছে, কোথায় সেনা বাহিনী ঘাঁটি গেড়েছে, কোথায় চেকিং চলে - এরকম বেশ কিছু সুরক্ষা সংক্রান্ত তথ্য তাকে পাঠিয়েছেন। এই বিষয়টি পুলিশের সাইবার সেলের নজরে আসার পরই রাকেশ কুমারকে আটক করা হয়েছে।

ইতিমধ্য়েই এই ঘটনার প্রেক্ষিতে একটি মামলা দায়ের করা হয়েছে। জম্মু-কাশ্মীর পুলিশ ও অন্যান্য নিরাপত্তা সংস্থা এই ঘটনার তদন্ত করছে। রাকেশ কুমারকে আরও জিজ্ঞাসাবাদের জন্য আপাতত শ্রীনগরের যৌথ জিজ্ঞাসাবাদ কেন্দ্রে পাঠানো হবে।

এর আগে ভারতীয় সেনাবাহিনীর দুই জওয়ানও এক পাক সুন্দরীর প্রেমের পাঁদে পা দিয়ে সেনা সংক্রান্ত বেশ কিছু গোপন নথি পাকিস্তানে পাচার করেথছিলেন। তাঁরাও ধরা পড়ে গিয়েছিলেন। বছর শুরুর আগেই ভারতীয় সেনাবাহিনীর প্রত্যেক সদস্যকেই সেনা কর্তৃপক্ষ সোশ্য়াল মিডিয়া ব্যবহারের বিষয়ে বিশেষ সতর্কতা অবলম্বনের নির্দেশ দিয়েছে।