আন্তর্জাতিক মঞ্চে বড়সড় ধাক্কা খাওয়ার পর এবার দেশের ভিতরেও কড়া প্রতিক্রিয়ার মুখোমুখি দিল্লির মুখ্যমন্ত্রী অরবিন্দ কেজরিওয়াল। দেশের তৃতীয় তরঙ্গের করোনা সংক্রমণের জন্য দায়ী হতে পারে সিঙ্গাপুর, কেজরিওয়ালের এমন মন্তব্যে প্রতিক্রিয়ার ঝড় কেন্দ্রে। বিদেশমন্ত্রী জয়শঙ্কর কার্যত বাক্যবাণে বিদ্ধ করেন কেজরিওয়ালকে। পরিষ্কার জানিয়ে দেন ভারতের প্রতিনিধিত্ব করেন না কেজরিওয়াল। 

 

বুধবার বিদেশমন্ত্রী জানান দিল্লির মুখ্যমন্ত্রীর এই ধরণের অপরিণত ও দায়িত্বজ্ঞানহীন মন্তব্যের জন্য ভারত ও সিঙ্গাপুরের দীর্ঘদিনের বন্ধুত্বপূর্ণ সম্পর্কে চিড় ধরতে পারে। এই ধরণের মন্তব্যকে কখনই সমর্থন করে না ভারত। কেজরিওয়াল যা বলেছেন, তা ভারতের বক্তব্য নয়, একান্তই তাঁর নিজের কথা। কারণ কেজরিওয়াল গোটা দেশের প্রতিনিধিত্ব করেন না। তিনি ভারতের হয়ে কথা বলার দায়িত্ব পাননি। 

বিদেশমন্ত্রীর বক্তব্যের প্রসঙ্গ ধরেই ট্যুইট করেন বিদেশমন্ত্রকের মুখপাত্র অরিন্দম বাগচি। তিনি বলেন ভারতের হাইকমিশনারকে এদিন ডেকে পাঠায় সিঙ্গাপুর সরকার। দিল্লির মুখ্যমন্ত্রীর বক্তব্যের প্রেক্ষিতে ভারতের জবাব চাওয়া হয়। ভারতের হাইকমিশনার এদিন ভারতের অবস্থান এই বিষয়ে স্পষ্ট করেছেন। তিনি জানিয়ে দিয়েছেন দিল্লির মুখ্যমন্ত্রীর এই বক্তব্যকে সমর্থন করে না কেন্দ্র। অরবিন্দ কেজরিওয়ালের করোনার নতুন স্ট্রেন বা অসামরিক বিমান পরিবহন নিয়ে বক্তব্য রাখার কোনও অধিকার নেই। 

 

মঙ্গলবার একটি ট্যুইট করে অরবিন্দ কেজরিওয়াল উদ্বেগ প্রকাশ করেন। তিনি জানান ভারতে আসতে চলা করোনার তৃতীয় তরঙ্গের জন্য সিঙ্গাপুর দায়ী হতে পারে। তিনি লিখেছিলেন সিঙ্গাপুরে আসা করোনার নতুন রূপটি শিশুদের জন্য অত্যন্ত বিপজ্জনক হিসাবে দেখা দিতে পারে। এটি ভারতে তৃতীয় তরঙ্গ হিসাবে আসতে পারে।

তবে বুধবার কেজরিওয়ালের এই ট্যুইট বার্তাকে সম্পূর্ণ খারিজ করে সিঙ্গাপুর। ভারতে সিঙ্গাপুরের রাষ্ট্রদূত জানিয়ে দেন সেদেশে করোনার কোনও নতুন স্ট্রেন বা রূপ নেই। সিঙ্গাপুরের স্বাস্থ্য মন্ত্রকের একটি বিবৃতি প্রকাশ করে এই দাবি করেন সিঙ্গাপুরের রাষ্ট্রদূত। 

তিনি জানান সিঙ্গাপুরে করোনার একটি স্ট্রেনই বর্তমান, তা হল B.1.617.2। এর সঙ্গে ভারতে করোনার তৃতীয় তরঙ্গ আসার কোনও সম্পর্ক নেই। দিল্লির মুখ্যমন্ত্রীর ধারণা অমূলক। B.1.617.2 স্ট্রেনটি সিঙ্গাপুরে শিশুদের মধ্যেও ছড়াচ্ছে। কিন্তু দেশের কোথাও করোনার নতুন স্ট্রেনের দেখা মেলেনি। 

অরবিন্দ কেজরিওয়ালের বক্তব্যকে খারিজ করে কেন্দ্রও। কেন্দ্রীয় অসামরিক বিমান পরিবহন মন্ত্রী হরদীপ সিং পুরী ট্যুইট করে জানান আন্তর্জাতিক উড়ানগুলি ২০২০ সালের মার্চ মাস থেকে বন্ধ রয়েছে। সিঙ্গাপুরের সঙ্গে ভারতের কোনও এয়ার বাবলও নেই। মাত্র কয়েকটি ভারতীয় বিমানের সাহায্যে আমরা সেখানে আটকা পড়া ভারতীয় লোকদের ফিরিয়ে আনব। তারা আমাদের দেশের নাগরিক।