হাথরসের ঘটনার পর আবাও চাপ বাড়ল যোগী প্রশাসনের ওপর। পুলিশের বিরুদ্ধে নিষ্ক্রিয়তার অভিযোগ তুলে এবার লখনউ- এ বিধানসভায় সামনে এক মহিলা নিজের গায়ে আগুন লাগিয়ে দিয়েছিলেন। আশঙ্কাজনক অবস্থায় তাঁকে নিয়ে যাওয়া হয় জেলা হাসপাতালে। উত্তর প্রদেশের রাজধানী লখনই-এর হজরতগঞ্জ থানার পক্ষ থেকে জানান হয়েছে মহিলার শারীরিক অবস্থা সংকট জনক। দেহের অধিকাংশই ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে আগুনে। 

প্রাথমিক তদন্ত অনুযায়ী আহত মহিলার বয়স ৩৫ বছর। মহিলা আগে বিয়ে করেছিলেন অখিলেশ তিওয়ারি নামের এক গাড়ি চালকের সঙ্গে। পরবর্তীকালে তাঁর সঙ্গে সম্পর্ক চুকিয়ে দিয়ে মহিলা বিবাহ সূত্র আবদ্ধ হন আসিফ নামের এক যুবকের সঙ্গে। কিন্তু আসিফ বিয়ের কিছুদিন পরেই সৌদি আরব চলে যায়। তারপর থেকেই শ্বশুরবাড়ির লোকজন মহিলার ওপর অত্যাচার করতে শুরু করে বলে অভিযোগ। একাধিকবার পুলিশের সাহায্য চেয়েছিলেন নির্যাতিতা মহিলা। কিন্তু তাতে কোনও লাভ হয়নি। মঙ্গলবার নির্যাতিতা মহিলা সরকারি আধিকারিকদের সঙ্গে দেখা করার জন্য লখনউ এসেছিলেন। কিন্তু সেই সময়ই আচমকা মহিলা নিজের গায়ে আগুন লাগুয়ে দেয়। খুব তাড়াতাড়ি পুলিশ তাঁকে উদ্ধার করে নিয়ে যায় হাসপাতালে। 

এই ঘটনাটি এমন একটা সময় ঘটেছে যখন হাথরসকাণ্ডে কিছুটা হলেও ব্যাকফুটে যোগী আদিত্যনাথের পুলিশ। হাথরসকাণ্ডে পুলিশের ভূনমিকা নিয়ে রীতমত প্রশ্ন তুলেছেন বহু মানুষ। আর সেই সময়ই আরও একবার সামনে এল নারী নির্যাতনের ঘটনা। যেখানে অভিযোগ উঠেছে পুলিশের কাছে সাহায্য চেয়েও তা পাওয়া যায়নি।