বুধবার সকালে ভারতে করোনাভাইরাস আক্রান্তের মোট সংখ্যা ৭.৪ লক্ষ ছাড়িয়ে গিয়েছে। সবচেয়ে ভয়ের বিষয় হল গত কয়েকদিন ধরে ভারতে দৈনিক মৃত্যুর সংখ্যাটাও বেড়ে চলেছে। এরমধ্যেই ভয়াবহ অপরাধের বিষয় ধরা পড়ল উত্তরপ্রদেশের মিরাটে। সেখানকার এক বেসরকারি হাসপাতাল বলা যায় রীতিমতো মৃত্যু নিয়ে ব্যবসা চলছে। ২৫০০ টাকা ঘুস দিলেই সেই হাসপাতাল থেকে দেওয়া হচ্ছে কোভিড-১৯ নেতিবাচক রিপোর্ট।

এই ঘটনার একটি ভিডিও সোশ্যাল মিডিয়ায় ভাইরাল হয়েছে। সেই ভিডিও-তে একজনকে বলতে শোনা যাচ্ছে, কোভিড-১৯ পরীক্ষার নেতিবাচক ফলাফল পাওয়ার জন্য ২,৫০০ টাকা দিতে হবে। ফলাফলের উপর মীরাটের দুই সরকারি হাসপাতালের কোনও একটির সিল-ও দেওয়া থাকবে। কাজেই, তার বৈধতা নিয়ে কোনও প্রশ্নই উঠবে না।

ওই ব্যক্তিকে বাকিদের কাছ থেকে ওই ফলাফল দেওয়ার জন্য অর্থ গ্রহণ করতেও দেখা গিয়েছে। অন্যান্যদের তিনি বলেন, রিপোর্ট নেওয়ার আগে তার সঙ্গে যোগাযোগ করার জন্য। এমনকী রোগীদের হাসপাতালে না আনারই পরামর্শ দেওয়া হয়।

ভিডিওটি ভাইরাল হওয়ার পরই অবশ্য ওই হাসপাতালের কর্তৃপক্ষের বিরুদ্ধে একটি এফআইআর নথিভুক্ত করা হয়েছে। হাসপাতালটিতে তালাও ঝুলিয়ে দেওয়া হয়েছে। গত শনিবার জেলা ম্যাজিস্ট্রেটের পক্ষ থেকে ওই হাসপাতালের লাইসেন্স বাতিল করার সুপারিশ-ও করা হয়েছে। মীরাটের পুলিশ সুপার অখিলেশ নারায়ণ সিং জানিয়েছেন, এই মামলাটি তদন্ত চলছে। তবে এখনও কাউকে গ্রেফতার করা হয়নি। তদন্ত শেষ হলে এই ঘটনায় জড়িত সকলকেই গ্রেফতার করা হবে।

তবে ইন্ডিয়ান মেডিকেল অ্যাসোসিয়েশনের মীরাট শাখার সম্পাদক অনিল নওসরান-এর মতে উত্তরপ্রদেশে মেডিকেল ডিগ্রি নেই এমন অনেক ব্যক্তিই হাসপাতাল ও নার্সিংহোমে এই ধরণের জালিয়াতি ব্যবসা চালাচ্ছে। এই বিষয়টি বন্ধ করতে হলে সরকারের উচিত একটি বড় মাপের অভিযান চালানো।