আরএসএস প্রধান মোহন ভাগবতের বিজয়া দশমীর ভাষণকেই হাতিয়ার করলেন কংগ্রেস নেতা রাহুল গান্ধী। লাদাখে চিনা অনুপ্রবেশ নিয়ে মোহন ভাগবতের বক্তব্যের সূত্র ধরে সোমবার রাহুল নিশানা করলেন আরএসএস এবং মোদী সরকারকে। তাদের বিরুদ্ধে সরাসরি চিনকে ভারতের ভূখণ্ড দখল করতে দেওয়ার অভিযোগ তুললেন প্রাক্তন কংগ্রেস সভাপতি।

এদিন, রাহুল গান্ধী অভিযোগ করেন, চিনা অনুপ্রবেশের সত্যতা সম্পর্কে অবগত ছিলেন মোহন ভাগবত। কিন্তু তা ,স্বীকার করতে তিনি 'ভয় পেয়েছিলেন'। সত্যের মুখোমুখি হতে ভয় পেয়েছিলেন, বলে দাবি করেছেন রাহুল। আর সত্যিটা হ'ল 'চিন আমাদের জমি দখল করেছে এবং ভারত সরকার ও আরএসএস তার অনুমতি দিয়েছে', এমনই গুরুতর অভিযোগ করেছেন কংগ্রেসের প্রাক্তন সভাপতি রাহুল গান্ধী।

তার আগে রবিবার, আরএসএস-এর চিরাচরিত প্রথা মেনে বিজয়া দশমীর ভাষণ দিতে গিয়ে চিনা অনুপ্রবেশের বিষয়টি স্বীকার করেছিলেন মোহন ভাগবত। তবে আরএসএস প্রধান দাবি করেছিলেন, ভারতের দৃঢ় প্রতিক্রিয়ায় চিন চমকে গিয়েছে। তিনি বলেন, 'ভারত দৃঢ়ভাবে রুখে দাঁড়িয়েছিল। ভারতের এই প্রতিক্রিয়া দেখে চিন হতবাক হয়ে গিয়েছিল। অর্থনৈতিক ও কৌশলগত দিক থেকে - এই ধাক্কা যথেষ্ট ছিল। চিন এর কোনও পূর্বাভাসই পায়নি।'

কংগ্রেস অবশ্য সেই গত মে মাস থেকেই চিনা অনুপ্রবেশের বিষয়টি নিয়ে প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী ও কেন্দ্রীয় সরকারকে নিশানা করে চলেছে। শুরু হয়েছিল স্বরাষ্ট্রমন্ত্রক ও প্রধানমন্ত্রীর বয়ানের অসঙ্গতি দিয়ে। তারপর থেকে প্রকাশ্যে চিন ও লাদাখের অনুপ্রবেশ-এর বিষয়টি উল্লেখ না করা নিয়ে নরেন্দ্র মোদীকে বিদ্ধ করেছে কংগ্রেস। সম্প্রতি রাহুল গান্ধী অভিযোগ করেছিলেন চিনের নাম মুখে আনকতেই ভয় পান প্রধানমন্ত্রী। আরএসএস প্রধানের চিনা অনুপ্রবেশের বিষয়টি মেনে নেওয়া নিয়ে সেই পথেই আক্রমণের ঝাঁঝ বাড়ালেন তিনি।