আলাপের প্রথম সূত্র ছিল এক হিন্দি ধারাবাহিক। তারপর কাকতালীয় ভাবে পরিচয়। সুযোগের সদ্ব্যবহার করতে উঠে পড়েছিলেন ডাক্তারবাবু। কিন্তু শেষরক্ষা হল না। চিকিৎসকের অপকীর্তি ফাঁস করলেন ওই অভিনেত্রী নিজেই।

২১ বছরেরে এক উঠতি অভিনেত্রীকে প্রেম নিবেদন করেন ৫৫ বছর বয়েসি একজন ডাক্তার। প্রেমপ্রস্তাবে সাড়া দিয়ে থাকতেও শুরু করেন ওই তরুণী। তার বিরুদ্ধে এবার ধর্ষণের অভিযোগ আনলেন ওই তরুণী। পুলিশ চেম্বুরের বাড়ি থেকে ওই চিকিৎসককে গ্রেফতার করে। জানা গিয়েছে, ওই চিকিৎসক একটি ওষুধ প্রস্তুতকারক সংস্থার সঙ্গে যুক্ত ছিলেন।

তরুণীর অভিযোগ, তাঁদের পরিচয় হয়েছিল ওই ডাক্তারেরই চেম্বারে। ত্বকের সমস্যার জন্যে সেখানে গিয়েছিলেন তিনি। তারপর ক্রমে তাদের ঘনিষ্ঠতা বাড়ে। তখনই লিভ টুগেদারের সিদ্ধান্ত নেন তাঁরা। তারপরেই শুরু হয় অত্যাচার। ঘনিষ্ঠ দৃশ্যের ছবি তুলে রাখা, থেকে ব্ল্যাকমেল কিছুই বাদ দেননি এই গুণধর ডাক্তার।

ওই তরুণীর অভিযোগের ভিত্তিতে ভারসোভা পুলিশ গ্রেফতার করেছে। সেখানকার ইন্সপেক্টর রবীন্দ্র বদগুজার  বলেন, চেম্বুরে নিজের বাড়ি থেকেই গ্রেফতার করা হয় অভিযুক্ত চিকিৎসককে।  আদালত তাকে ১০ মে পর্যন্ত পুলিশি হেফাজতে রাখার নির্দেশ দিয়েছে।