ব্যাপক ঠান্ডায় কাঁপছে গোটা উত্তর ভারত। জম্মু-কাশ্মীর থেকে শুরু করে হিমাচল প্রদেশেরও বেশ কিছু জায়গায় নিয়মিত বরফ পড়ছে। কিন্তু অতদূর যেতে হবে না। বিস্ময়করভাবে বছরের শুরুতেই প্রায় চার দশক পর তুষাড়পাত হল উত্তরপূর্বের রাজ্য নাগাল্যান্ডে। উত্তর-পূর্বের রাজ্যগুলিতেও দারুণ শৈত্যপ্রবাহ চলছে। আর তার জেরেই নাগাল্যান্ডের তুয়েনসাং, কিফিরে, জুহেবোতো, ফেক ও পেরেন জেলায় বরফ পড়া শুরু হয়েছে। গত কয়েকদিন ধরেই এইসব এলাকার তাপমাত্রা ৫ ডিগ্রির নিচে ঘোরাফেরা করছিল। বছরের সন্ধিক্ষণে পারদ আরও নেমে গিয়েছে।

বুধবার রাজধানি কোহিমার তাপমাত্রা ছিল ৩ ডিগ্রি সেলসিয়াসের নিচে। রাজ্যের বিভিন্ন জায়গায় বিচ্ছিন্নভাবে ঘন কুয়াশার সতর্কতা জারি করা হয়েছে। ইন্টারনেটে তুষাড়াবৃত নাগাল্যান্ডের দুর্দান্ত কিছু ছবি ও ভিডিও পোস্ট করা হয়েছে। একদিকে যেমন এই তুষাড়পাত নিয়ে মানুষের মধ্যে দারুণ উন্মাদনা তৈরি হয়েছে, তেমনই বেশ কিছু মানুষ এই অসাধারণ ঘটনায় সিঁদুরে মেঘ দেখছেন। কেউ বলছেন এই তুষাড়পাত গ্লোবাল ওয়ার্মিং-এর ইঙ্গিত, অপরদিকে কেউ কেউ বলছেন এটা খামখেয়ালি আবহাওয়ার ফল।

এই নিয়ে গুয়াহাটির আঞ্চলিক আবহাওয়া কেন্দ্রের বিজ্ঞানী সুনিত দাস জানিয়েছেন, এই ঘটনার জন্য দায়ী একটি পশ্চিমী ঝঞ্ঝা। এই পশ্চিমী ঝঞ্ঝা এই মুহূর্তে নাগাল্যান্ডের বায়ুমণ্ডলের উপরাংশে অবস্থান করায় এই অঞ্চলের বায়ুমণ্ডলের নিচের স্তরে হিমশীতল উত্তুরে বাতাস অনুপ্রবেশ করছে। যার জন্যই এই প্রবল ঠান্ডা ও তুষাড়পাত-এর ঘটনা ঘটছে।