নাগরিকত্ব আইন নিয়ে যে তাঁরা কোনও অবস্থাতেই পিছু হটবেন না, তা আগেই স্পষ্ট করে দিয়েছিলেন কেন্দ্রীয় স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী অমিত শাহ। এবার এনডিএ-র বৈঠকে প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদীও সংশোধিত আইন নিয়ে আক্রমণাত্মক অবস্থান নেওয়ার জন্যই শরিক দলগুলিকে বার্তা দিলেন। একই সঙ্গে শরিক দলগুলির সঙ্গে বৈঠকে তাঁর তাৎপর্যপূর্ণ বার্তা, মুসলিমরাও বাকিদের মতোই ভারতীয় নাগরিক। 

বাজেট অধিবেশনের শুরুতে এ দিন এনডিএ-এর শরিক দলের নেতাদের সঙ্গে বৈঠক করেন প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী। বৈঠকে উপস্থিত ছিলেন স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী অমিত শাহও। বৈঠক শেষে এনডিএ-এর শরিক দলের এক নেতা সংবাদসংস্থাকে জানান, নাগরিকত্ব আইন নিয়ে রক্ষণাত্মক না হওয়ার জন্যই শরিক দলগুলিকে পরামর্শ দিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী। শুধু তাই নয়, নাগরিকত্ব আইন নিয়ে তাঁর সরকারের যে রক্ষণাত্মক হওয়ার কোনও কারণ নেই, সেটাও স্পষ্ট করে দিয়েছেন মোদী। তাঁর সাফ বার্তা, সংশোধিত নাগরিকত্ব আইন এনে কোনও ভুল করেনি তাঁর সরকার। 

আরও পড়ুন- রাষ্ট্রপতির ভাষণের সময় নীরব প্রতিবাদ তৃণমূলের, 'অসভ্যতা' বলে কটাক্ষ বাবুলের

সংসদের বাজেট অধিবেশনে শরিক দলগুলি যাতে নাগরিকত্ব আইন নিয়ে সরকারের পদক্ষেপকে জোরাল সমর্থন করে, সেই আবেদন করেছেন প্রধানমন্ত্রী। নয়া আইন নিয়ে বিরোধীরা যা যা অভিযোগ আনছে, আক্রমণাত্মকভাবেই তার জবাব দেওয়ার নির্দেশ দিয়েছেন নরেন্দ্র মোদী। আর পাঁচজন নাগরিকের মতোই মুসলিমরাও যে এ দেশের নাগরিক, তাৎপর্যপূর্ণভাবে তাও উল্লেখ করেছেন প্রধানমন্ত্রী। 

সংশোধিত নাগরিকত্ব আইন কার্যকর হওয়ায় মুসলিমরাই সবথেকে সমস্যায় পড়বেন বলে অভিযোগ তুলছে বিরোধীরা। ধর্মের ভিত্তিতে সরকার নাগরিকত্ব দেওয়ার চেষ্টা করছে বলেও অভিযোগ ওঠে। এই পরিস্থিতিতে মুসলিমদের নিয়ে শরিক দলগুলির সামনে সরকারের অবস্থান স্পষ্ট করতেই প্রধানমন্ত্রী বার্তা দিলেন বলে মনে করা হচ্ছে। নয়া আইন নিয়ে দেশজুড়ে বিক্ষোভ শুরু হওয়ায় এনডিএ-র শরিক দলগুলিও অস্বস্তিতে পড়েছিল। এ দিন সংশোধিত আইন নিয়ে সরকারের কড়া মনোভাব স্পষ্ট করেই শরিক দলগুলির আস্থা অর্জনের চেষ্টা করলেন প্রধানমন্ত্রী।