চলছে সপ্তদশ লোকসভার বাজেট পাঠ। পূর্ণাঙ্গ বাজেটের শুরুতেই অর্থমন্ত্রী বুঝিয়ে দিলেন গ্রামের উন্নয়নই এই বাজেটের প্রধাণ লক্ষ্য। স্বাধীনতার ৭৫ বছর পূর্তিতে কৃষকের আয় দ্বিগুণ করতেই কাজ করবে দ্বিতীয় মোদী সরকার। 

এদিন বাজেট পাঠের সময় নির্মলা সীতারামন বলেন, 'এই বছর গান্ধীর সার্ধশতবর্ষ। আমরা গ্রাম -গরীব -কিষাণকে মনে রেখে কাজ করব।'

কীভাবে বাস্তবায়িত হবে গ্রামীণ উন্নয়ন পরিকল্পনা? নির্মলা নিজের পরিকল্পনা বললেন- 

  • আপাতত সাত কোটি এলপিজি দেওয়া হয়েছে। ২০২২ এর মধ্যে প্রত্যেকে বিদ্যুৎ ও রান্নার ঘর দেওয়া হবে।
  • প্রতিটি বাড়িতে শৌচাগার থাকবে।
  • জোর দেওয়া হবে গ্রামীণ আবাস যোজনায়।

আরও পড়ুনঃ শুরু হল বাজেট পাঠ, চাণক্য়নীতিতেই ভরসা নির্মলার
বাজেটের শুরুতেই বাংলার জন্য সুখবর, বড় ঘোষণা করলেন অর্থমন্ত্রী

নির্মলা মনে করিয়ে দেন, আগে ৩১৪ দিন লাগত একটি বাড়ি তৈরি করতে। এখন ১১৪ দিনে নামিয়ে আনা গিয়েছে বাড়ি তৈরির দিন। নির্মলা জানান, জেলে সম্প্রদায়ের জন্যে ভাবা হবে প্রধানমন্ত্রী মৎস্য যোজনার মধ্যে দিয়ে তৈরি হবে ফিশারি। এছাড়া তার প্রতিশ্রুতিঃ 

  • নতুন বাড়ি হবে ১ কোটি ৯৫ লক্ষটি। 
  • প্রধামন্ত্রী গ্রামসড়ক যোজনায় আশি হাজার কোটি টাকারও বেশি বরাদ্দ করা হয়েছে বলে জানাচ্ছেন তিনি। 
  • কৃষি সংক্রান্ত অন্যান্য ক্ষেত্রেও তৈরি হতে চাইছেন নির্মলা। 

গান্ধীর সার্ধশতবর্শষ প্রসঙ্গে এদিন নির্মলা বললেন, গান্ধীকে সম্মান জানাতে রাজঘাটে তৈরি হবে মিউজিয়াম। গান্ধীপিডিয়া হবে উইকিপেডিয়ার ঢঙে। এখানেই শেষ নয়। গ্রামীণ মহিলাদের ক্ষমতায়ণেও জোর দিচ্ছেন নির্মলা। এদিন তিনি বলেন, 'আমরা যে ধরণের পরিবর্তন চাইছি সেখানে নারীদের নেতৃত্ব কাজে লাগবে। এবার মহিলাদের ভোটে অংশগ্রহণ আমাদের অনুপ্রেরণা দিয়েছে। আমাদের ৭৮ জন সাংসদ রয়েছেন মহিলা। আমরা তাই মহিলাদের নেতৃত্বদানের জায়গায় দেখতে চাইছি। আমরা মহিলা পরিচালিত সেল্ফ হেল্প গ্রুপ প্রতিটি গ্রামে ছড়িয়ে দিতে চাই। প্রতিটি সেল্ফ হেল্প গ্রুপ থেকে একজন প্রয়োজনে ১ লক্ষ টাকা ধার পাবেন।'