এনপিআরের জন্য কোনও দলিল জমা দিতে হবে না। রাজ্যসভা বললেন কেন্দ্রীয় স্বরাষ্ট্র মন্ত্রী অমিত শাহ। কংগ্রেস সাংসদের প্রশ্নের উত্তর দিতে গিয়ে তিনি বলেন কোনও ব্যক্তিকেই সন্দেহজন চিহ্নিত করা হবে না। পাশাপাশি নাগরিকত্ব সংশোধনী  আইন নিয়েই অমিত শাহ আশ্বস্ত করেন সংখ্যলঘু সম্প্রদায়কে। তিনি বলেন দেশের মুসলিম ভাইবোনেদের চিন্তার কোনও কারণ নেই। সিএএ-র মাধ্যমে কোনও ব্যক্তির নাগরিকত্ব কেড়ে নেওয়া হবে না। উল্টে নাগরিকত্ব প্রদান করা হবে। 

দিল্লির হিংসা নিয়ে রাজ্যসভা বক্তব্য পেশ করছিলেন কেন্দ্রীয় স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী অমিত শাহ। সেই সময়ই নাগরিকত্ব সংশোধনী আইন ও এনপিআর-এর প্রসঙ্গ ওঠে। তখনই অমিত শাহ বলেন, তিনি স্পষ্ট করে দিচ্ছেন এনপিআর-এর জন্য কোনও দলিল জমা দিতে হবে না। যে তথ্য রয়েছে তা জমা দিলেও হবে। বাকি প্রশ্নের উত্তর না দিলেও চলবে বলে তিনি জানিয়েছেন। সেই সময়ই এক কংগ্রেস নেতা তাঁকে জিজ্ঞাসা করেন 'ডি' বলে যে ক্যাটাগরি রয়েছে তা কী মুছে ফেলা হবে। তারই উত্তর দিতে গিয়ে কেন্দ্রীয় স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী বলেন সন্দহজনক বলে কোনও বিভাগ থাকবে না। পাশাপাশি কাউকে সন্দেহজনক চিহ্নিত করা হবেও না। এই নিয়ে দেশবাসীর ভয় পাওয়ার কিছু নেই বলেও তিনি জানিয়েছেন। 

বেশ কিছু রাজ্য সিএএ-র বিরোধিতা করেছে। আর বেশ কিছু রাজ্য বিরোধিতা করেছে এনপিআর-এর। নাগরিকত্ব সংশোধনী আইনের তীব্র বিরোধিতায় সরব হয়েছে দেশের বহু মানুষ। এই আইনের বিরুদ্ধে পথে নেমে প্রতিবাদে সামিল হয়েছিলেন অনেকই। তারই ফলস্রুতি দিল্লির ভয়াবহ হিংসা। কারণ সিএএ সমর্থক ও বিরোধীদের সংঘর্ষেই শুরু হয়েছিল দিল্লির হিংসা। তারপর টানা তিন দিন ভয়ঙ্কর হিংসা সাক্ষী থেকে ছিল দিল্লির মানুষ। দিল্লির হিংসায় মৃতের সংখ্যা ৫০ ছাড়িয়েছে। আহত হয়েছেন শতাধিক। সবকিছু হারিয়ে অনেকই আজ অসহায়। এই পরিস্থিতিতে দিল্লির হিংসা নিয়ে অমিত শাহের দবাব তলব করেছিল বিরোধী রাজনৈতিক দলগুলি। সেই দিল্লির হিংসা নিয়ে বলতে উঠেই এনপিআর ও সিএএ প্রসঙ্গ উত্থাপন করেন অমিত শাহ।