কর্তারপুর করিডরের উদ্বোধন ইতিমধ্যে সীমান্তে পৌঁছচেন প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী।  এই করিডরের মধ্য দিয়ে শিখ তীর্থযাত্রীরা পাকিস্তানের দরবার সাহিবে যাবেন। প্রথম যে ৫৫০ জন শিখযাত্রী কর্তারপুর যাবেন, সেই দলে রয়েছেন প্রাক্তন প্রধানমন্ত্রী মনমোহন সিং, পঞ্জাবের মুখ্যমন্ত্রী অমরিন্দর সিং, অভিনেতা তথা রাজনীতিবিদ সানি দেওল। কংগ্রেস বিধায়কত নভজোত সিং সিধুকে দরবার সাহিবে যাওয়ার জন্য বৃহস্পতিবার অনুমতি দেওয়া হয়েছে বলে জানা গিয়েছে।  সীমান্তের এক দিকে কর্তারপুর করিডরের উদ্বোধন করবেন প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী। অন্য দিকের সীমান্তে কর্তারপুর করিডরের উদ্বোধন করবেন পাক প্রধানমন্ত্রী ইমরান খান। 

শনিবার প্রধানমন্ত্রী কর্তারপুর করিডরের পাশাপাশি একটি যাত্রী টার্মিনালের উদ্বোধন করবেন বলে জানা গিয়েছে। এই ভবন থেকেই অনুমতি প্রাপ্ত পুণ্যার্থীরা করিডরে প্রবেশ করবেন বলে জানা গিয়েছে।  কর্তারপুর করিডরের উদ্বোধনের পর প্রধানমন্ত্রী সুলতানপুর লোধির  দরবার সাহিব গুরুদ্বারে প্রার্থণা করবেন বলে জানা গিয়েছে। 

প্রসঙ্গত, ২৪ অক্টোবর ভারত পাকিস্তান কর্তারপুর করিডর চুক্তি স্বাক্ষরিত করে। পাকিস্তানের নারওয়াল জেলায় ভারত-পাক সীমান্তের কর্তারকপুর জিরো পয়েন্টে এই চুক্তি স্বাক্ষরিত হয়। এই দরবার শরিফে শিখ ধর্মের প্রতিষ্ঠাতা গুরু নানক জীবনের শেষ ১৮ বছর অতিবাহিত করেছিলেন। শিখদের পবিত্র তীর্থস্থান হিসেবে কর্তারপুর সাহিব গুরুদ্বারকে মনে করা হয় বলে জানা গিয়েছে।