নাগরিকত্ব সংশোধনী আইনের বিরোধিতার নামে দেশ আগুন জ্বালাচ্ছে কংগ্রেস ও তার সহযোগীরা। ঝাড়খণ্ডে ভোট প্রচারে গিয়ে এমনই অভিযোগ তুললেন প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী। তাঁর দাবি, দেশের বিভিন্ন জায়গায় যে অশান্তি, লুঠপাট এবং সম্পত্তি ধ্বংসের ঘটনা ঘটছে, তার পিছনে রয়েছে বিরোধী দলগুলি। 

এ দিন ঝাড়খণ্ডের দুমকায় গিয়ে এই অভিযোগ তোলেন প্রধানমন্ত্রী। তিনি বলেন, দেশের উন্নয়নের জন্য কোনও রূপরেখাই নেই কংগ্রেসের। ক্ষুব্ধ প্রধানমন্ত্রী বলেন, 'কংগ্রেস এবং তার সহযোগী দলগুলি নাগরিকত্ব আইন নিয়ে আগুন জ্বালানোর চেষ্টা করছে। কিন্তু উত্তর পূর্বাঞ্চলের মানুষ হিংসাকে প্রত্যাখ্যান করেছেন। কংগ্রেসের এই কার্যকলাপে প্রমাণিত যে সংসদে যে সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে তা সঠিক। 

বিরোধীদের বিঁধে প্রধানমন্ত্রী বলেন, মানুষের সমস্যা নিয়ে বিন্দুমাত্র না ভেবে শুধুমাত্র নিজেদের আখের গুছিয়েছেন বিরোধী দলের নেতারা। নিজের সরকারের সাফল্যের তালিকা মানুষের সামনে তুলে ধরে প্রধানমন্ত্রীর দাবি, 'আমাদের দল এই রাজ্যের জন্য কী কী করেছে, তার সম্পূর্ণ হিসেব নিয়ে আমি এখানে এসেছি।'

নাগরিকত্ব সংশোধনী আইনের প্রতিবাদে প্রথমে উত্তপ্ত হয়ে উঠেছিল ত্রিপুরা, অসমের মতো উত্তর পূর্বের রাজ্যগুলি। সেখানে অশান্তি কিছুটা কমতেই অগ্নিগর্ভ হয়ে উঠেছে গোটা পশ্চিমবঙ্গ। প্রতিবাদের নামে রীতিমতো তাণ্ডব চলছে বাংলায়। রাজ্য সরকার তো বটেই, সরকার- বেসরকারি সম্পত্তির বেলাগাম ক্ষতি কেন্দ্রীয় সরকারেরও চিন্তার কারণ। এরই মধ্যে রবিবার থেকে ফের উত্তপ্ত হয়ে উঠেছে দিল্লি। সেখানে একাধিক বাসে আগুন জ্বালানো হয়েছে, ভাঙচুর করা হয়েছে গাড়ি। ফলে বিরোধীদের আক্রমণ করলেও আসলে মোদী- শাহদের চিন্তিত হওয়ার যথেষ্ট কারণ আছে। নাগরিকত্ব আইনকে ঘিরে অশান্তির দায় যাতে কোনওভাবেই বিজেপি-র ঘাড়ে না চাপে, তাই এবার বিরোধীদেরকেই নিশানা করলেন প্রধানমন্ত্রী।