রক্ষা বন্ধন বা রাখি এখনও ১০ দিন বাকি। তার আগেই বৃহস্পতিবার মণিপুরের মহিলাদের 'রক্ষা বন্ধন-এর উপহার' দিলেন প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী। বলেছেন, ভিডিও কনফারেন্সের মাধ্যমে, কেন্দ্রীয় প্রকল্প, 'জল জীবন মিশন'এর আওতায় মণিপুরের একটি জল সরবরাহ প্রকল্পের ভিত্তি প্রস্তর স্থাপনের সময় এই দাবিই করলেন প্রধানমন্ত্রী।

তিনি বলেন, প্রকল্পটি বৃহত্তর ইম্ফল এবং মণিপুরের ১,৭০০ গ্রামে বিশুদ্ধ পানীয় জল পৌঁছে দেবে। যাতে উপকৃত হবেন ওই রাজ্যের এক লক্ষ পরিবারের মহিলারা। সেই সঙ্গে প্রকল্পটি স্থানীয় পঞ্চায়েত এবং স্থানীয় বাসিন্দাদের সহায়তায় তৈরি করা হয়েছে বলে তিনি একে 'বিকেন্দ্রীকরণের একটি সূক্ষ্ম উদাহরণ' বলেছেন। এছাড়া, মণিপুর জল সরবরাহ প্রকল্পটির মাধ্যমে হাজার হাজার মানুষের কর্মসংস্থান হবে বলেও দাবি করেছেন প্রধানমন্ত্রী মোদী।

এই প্রকল্পের জন্য 'জল জীবন মিশন'এর আওতায় তহবিল দিচ্ছে কেন্দ্রীয় সরকার। বৃহত্তর ইম্ফল, আরও ২৫টি শহর, এবং মণিপুরের ১৬ টি জেলার ১,৭৩১ গ্রামে মিষ্টি পাণীয় জল পৌঁছে দেওয়া হবে। উপকৃত হবে প্রায় ২,৮০,৭৫৬টি পরিবার। ২০২৪ সালের মধ্যে 'হর ঘর জল', অর্থাৎ প্রত্যেক ভারতীয়ের ঘরে ঘরে পাণীয় জল পৌঁছে দেওয়ার লক্ষ্য নিয়েছে মোদী সরকার। সেই প্রচেষ্টার একটি গুরুত্বপূর্ণ অংশ এই মণিপুর দজল সরবরাহ প্রকল্প। প্রকল্পটির জন্য সম্ভাব্য ৩০৫৪.৫৮ কোটি টাকা খরচ হবে।

এদিনের ভিত্তি প্রস্তর স্থাপন অনুষ্ঠানে উপস্থিত ছিলেন মণিপুরের রাজ্যপাল নাজমা হেপতুল্লা, মুখ্যমন্ত্রী এন বীরেন সিং, বেশ কয়েকজন মন্ত্রিসভার সদস্য, সাংসদ এবং বিধায়করা। কেন্দ্রীয় মন্ত্রী জলশক্তি মন্ত্রী গজেন্দ্র শেখাওয়াত এবং জিতেন্দ্র সিং-ও ভিডিও কনফারেন্সের মাধ্যমে এই কর্মসূচিতে অংশ নিয়েছিলেন।