রাজধানী দিল্লির রাজপথে নেমে পড়লেন কংগ্রেসের সাধারণ সম্পাদক  প্রিয়ঙ্কা গান্ধী। রবিবার সিএবি-র প্রতিবাদে আন্দোলনে নামা জামিয়া-ইসলামিয়া বিশ্ববিদ্যালয়ের পড়ুয়াদের মারধর করে পুলিশ। ক্যাম্পাসে ঢুকেই পেটানো হয় পড়ুয়াদের। পাশাপাশি আলিগড় মুসলিম বিশ্ববিদ্যালয়ের পড়ুয়ারাও পুলিশি নিগ্রহের শিকার হন। এর প্রতিবাদেই সোমবার দিল্লির রাজপথে ধরনায় বসলেন কংগ্রেস নেত্রী।

ইন্ডিয়া গেটের সামনে ২ ঘণ্টার জন্য প্রতীকী ধরনায় বসেন  প্রিয়ঙ্কা গান্ধী। সঙ্গে ছিলেন আহমেদ প্যাটেল, কেসি ভেনুগোপাল, সুস্মিতা দেব  সহ কংগ্রেসের অন্যান্য নেতা-নেত্রীরাও। 

 

বিকেল ৪টে নাগাদ প্রিয়ঙ্কা যখন রাজপথে বসবেন তখন ধরনায় তেমন ভিড় না থাকলেও তাকে দেখে ক্রমেই এগিয়ে আসেন কংগ্রেসের নেতা-কর্মীরা। সাংবাদিকদের মুখোমুখি হয়ে প্রিয়ঙ্কা বলেন, "দেশের পরিস্থিতি  খুবই খারাপ। পড়ুয়াদের উপর হামলা চালাতে বিশ্ববিদ্যালয়ে ঢুকছে পুলিশ। সংবিধান লঙ্ঘন করছে সরকার। আমরা সংবিধান রক্ষার জন্য লড়াই করে যাব।"

এদিকে  কংগ্রেস সহ অন্যান্য বিরোধী দলগুলি নিজেদের রাজনৈতিক স্বার্থ চরিতার্থ করতে পড়ুয়াদের মোহড়া হিসাবে ব্যবহার করছে বলে আক্রমণ শানায় বিজেপি। সাংবাদিক সম্মেলনে বিজেপির মুখপাত্র সম্বিত পাত্র অভিযোগ করেন, বিরোধী দলগুলি দেশবাসীকে ভুল বোঝাচ্ছে, বিভেদ সৃষ্টির চেষ্টা করছে।