আবার শিরোনামে উত্তরপ্রদেশের আইন-শৃঙ্খলা ব্যাবস্থা। বৃহস্পতিবার কংগ্রেসের সাধারণ সম্পাদক প্রিয়াঙ্কা গান্ধী তাঁর টুইটার হ্যান্ডেল থেকে একটি ভিডিও শেয়ার করেন। সেখানে উত্তরপ্রদেশের আইনশৃঙ্খলা ব্যাবস্থা কে এক হাত নিয়ে তিনি দাবি করেন, রাজ্যের কোথাও মহিলারা সুরক্ষিত নন। এমনিতেই সোনভদ্রা হত্যাকাণ্ডের পর থেকেই প্রিয়াঙ্কা গান্ধী বনাম যোগী সরকারের দ্বৈরথ জমে উঠেছে। এখন দেখার এই টুইটটির পরে পরিস্থিতি কথায় গিয়ে দাঁড়ায়।  

প্রিয়াঙ্কা গান্ধীর শেয়ার করা ভিডিওটিতে দেখা যাচ্ছে একজন সন্ত্রস্ত মহিলা তাঁর সামনে বসে থাকা পুলিশ আধিকারিককে অভিযোগ করছেন তিনি শ্লীলতাহানি এবং কটূক্তির শিকার। তিনি আরও জানান ঘটনার প্রতিবাদ করায় দুষ্কৃতিরা তাঁর ভাইকেও মারধোর করে। এরকম পরিস্থিতিতে ভিডিওটিতে দেখা যাচ্ছে পুলিশের আধিকারিকটি তাঁর অভিযোগ না নিয়ে তাঁর গায়ের গহনা নিয়ে প্রশ্ন তুলছেন। ভিডিওটিতে এও দেখা যায় যে তিনি ওই মহিলার আচরণ নিয়েও প্রশ্ন তুলছেন। তার ক্ষনিক পরে ওই আধিকারিককে মহিলার পরিবার নিয়েও কটুক্তি করতে শোনা যায়। 

 প্রিয়াঙ্কা গান্ধী তাঁর টুইটারে লেখেন যে ওই পুলিশ আধিকারিকের আচরণ থেকেই স্পষ্ট উত্তর প্রদেশে মহিলাদের সুরক্ষার প্রকৃত চিত্রটি ঠিক কী। এক দিকে যেমন মহিলাদের বিরুদ্ধে ঘটে চলা অপরাধের সংখ্যা লাফিয়ে লাফিয়ে বেড়ে চলেছে, আর উল্টোদিকে নির্যাতিতার সঙ্গে এরকম দুর্ভাগ্যজনক অচরণ করছে পুলিশ।  মহিলাদের বিরুদ্ধে ঘটা অপরাধ দমন করার প্রথম ধাপই  হল ধৈর্য ধরে তাঁদের কথা শোনা বলেও তাঁর টুইট বার্তায় দাবি করেন প্রিয়াঙ্কা। 

প্রথম থেকেই যোগী সরকারের আমলে মহিলাদের সুরক্ষার দাবি তে সরব প্রিয়াঙ্কা। সোনভদ্রা হত্যাকাণ্ডের পরে তাঁর আন্দোলন প্রবল চাপে ফেলে উত্তরপ্রদেশ প্রশাসনকে । এখন দেখার এই টুইট বোমার রেশ কোথায় গিয়ে পৌঁছয়। বিষদে জানা না গেলেও মনে করা হচ্ছে ভিডিও-টি বেনারসের একটি ঘটনার।