অনলাইনে এক জিনিস অর্ডার করে আরেক জিনিস হাতে পাওয়ার অভিজ্ঞতা অনেকেরই রয়েছে৷ তবে বেশিরভাগ ক্ষেত্রেই জিনিস ফেরত নিয়ে নেয় ই-কর্মাস সংস্থাগুলি৷ তারপরেও বেশ কয়েকজন গ্রাহতের অনলাইন শপিংয়ের অভিজ্ঞতা সুখকর হয়না৷  মাঝে মধ্যেই ইকমার্স সংস্থাগুলির বিরুদ্ধে অভিযোগ ওঠে, যা অর্ডার করা হয়েছিল তার চেয়ে খারাপ জিনিস পাঠান হয়েছে৷ আর সেই জিনিস ফেরতও নেওয়া হয়নি৷

আরও পড়ুন: নয়া রেকর্ড গড়ে গত ২৪ ঘণ্টায় করোনা আক্রান্ত প্রায় ১১ হাজার, দেশে সংক্রমণের সংখ্যা এবার ৩ লক্ষ ছুঁই ছুঁই

জোশ সফটওয়্যার সংস্থার সহপ্রতষ্ঠাতা গৌতম রেগে সম্প্রতি ৩০০ টাকার একটি স্কিন লোশনের অর্ডার দিয়েছিলেন অ্যামাজনে। কিন্তু পার্সেল খোলার পর বেরিয়ে আসে বহু মূল্যবান সামগ্রী৷ ১৯,০০০ টাকার বোস ওয়্যারলেস হেডফোন। এরপর তিনি ফোন করে সংস্থার কাস্টমার কেয়ারে হেডফোনটি ফেরত দেওয়ার আবেদন জানান । মজার ঘটনা হল, অ্যামাজন আর ওই হেডফোন ফেরত  নেবে না বলে জানিয়ে দেয়৷ সোশ্যাল মিডিয়ায় গৌতম রেগে তাঁর এই অভিজ্ঞতার কথা শেয়ার করেন৷ 

আরও পড়ুন: স্লোগান দিয়েছিলেন 'পাকিস্তান জিন্দাবাদ', রাষ্ট্রদ্রোহিতায় অভিযুক্ত কন্যার তথ্যাভাবে মিলল জামিন

জানা যাচ্ছে গৌতম রেডের অর্ডারটি  ফেরতযোগ্য ছিল না। তাই ওই হেডফোনটি অ্যামাজন আর ফেরত নেবে না। উপরন্তু অ্যামাজন আবার গৌতমকে ওই স্কিন লোশনের মূল্য বাবদ ৩০০ টাকা ফেরত দিয়েছে।

 

এই ব্যাপারটি নিয়ে গৌতম তাঁর অভিজ্ঞতা ট্যুইটারে শেয়ার করেন। যা মুহুর্তের মধ্যে ভাইরাল হয়ে যায়। অনেক নেটিজেনই নিজেদের অভিজ্ঞতার কথা শেয়ার করতে থাকেন। এরমধ্যেই এক নেটিজেন  ট্যুইটে জানানো , একটি ১৩,০০০ টাকা মূল্যের ডেল মনিটর অর্ডার করে তিনি পরিবর্তে  কলিনের বোতল পান।

 

আবার অন্যদিকে আরেকটি ট্যুইটে দাবি করা হয়, অ্যামাজনের থেকে একটি সাধারণ আফটার শেভ লোশনের পরিবর্তে লেনোভো ট্যাব ৪ পেয়ে গিয়েছেন ওই ভাগ্যবান ব্যক্তি। এবং সব থেকে মজার বিষয় হল, অ্যামাজনের এক  গ্রাহক কিছুদিন আগে গো প্রো হিরো ৪ পেয়ে যান, যা তিনি অর্ডারই করেননি। তবে অনেক টেনিজেনকেই গৌতম রেগে হেডফোন পাওয়ার ঘটনায় ঈর্ষান্বিত হয়ে পড়তে দেখা যায়।