সামান্য একটু আনন্দ করতে গিয়ে এক চরম সংকটের মুখোমুখি পড়েছে পুনের চার বছরের একটি ছোট্ট ছেলে। হোটেলে খাবার থেকে গিয়ে ছোট্ট শিশুকে এখন পাঞ্জা লড়তে হচ্ছে মৃত্যুর সঙ্গে। হাসপাতাল থেকে জানান হয়েছে জিভ পুড়েছে গেছে। ক্ষতি হয়েছে খাদ্যনালীরও।   পরিবারের সঙ্গে সে বিশ্ব নামে একটি হোটেলে গিয়েছিল। খাওয়া করে সেখানে। কিন্তু তারপরই মাউথ ফ্রেসনার হিসেবে ছোট্ট ছেলেটি একটি চিনি চেয়েছিল। তারপরেই ঘটে যায় চরম বিপত্তি। 

ছোট্ট ছেলেছিলে হোটেলের ওয়েটার একটি বোতল এগিয়ে দেয়। সে সাতপাঁচ কিছু না ভেবেই সেটি সাজোসুজি  মুখে পুরে দেয়। তারপরই চিকিৎকার করে ওঠে ছোট্ট ছেলেটি। সে জানায় তার মুখ জ্বলে যাচ্ছে। তারপরই শুরু হয়ে যায় অসুস্থতা। ছোট্ট শিশুটির সঙ্গে ছিল তাঁর দাদু। নাতি কী খেয়ে এত অসুস্থ হয়ে পড়েছে তা জানার জন্য তিনিও ওই বোতলের খাবারটি মুখে দেন। তাতেই তিনি বুঝতে পারেন বোতলে  চিনি ছিল না ছিল কস্টিক  সোডা।  অসুস্থ চার বছরের শিশুকে সঙ্গে সঙ্গে নিয়ে যাওয়া হয় স্থানীয় দীনানাথ মঙ্গেশকর হাসপাতালে। সেখানে আইসিইউতে ভর্তি করা হয়ে তাকে। তার শরীরের অবস্থা পরীক্ষা করার জন্য এন্ডোজকপি করা হয়। তাতে জানা যায় ছেলেটির খাদ্যনালীতে আঘাত রয়েছে। হাসপাতাল থেকেও জানিয়ে দেওয়া হয়েছে ছেলেটির শরীরে প্রবেশ করেছে পরিষ্কার করার সোডা। 

এই ঘটনার পরই আক্রান্তের পরিবারের পক্ষ থেকে স্থানীয় থানায় গিয়ে অভিযোগ দায়ের করা হয়।তদন্ত নামে পুলিশ।  রেস্তোঁরা মালিক ও ওয়েটারের বিরুদ্ধে মামলা দায়ের করেছে। তবে ঘটনার পর থেকে পলাতক ওয়েটার। ৩৩৭ ধারায় মামলা দায়ের করা হয়েছে। ওয়েটারকে সনাক্ত করার জন্য সিসিটিভি ফুটেজ খতিয়ে দেখছে পুলিশ।