গত ১২ মে প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী জাতির উদ্দেশ্যে ভাষণে বলেছিলেন, তাঁর বিশ্বাস করোনা পরবর্তী বিশ্বে ভারত অন্যতম বিশ্বশক্তি হয়ে উঠবে। শেষ পর্যন্ত কি হবে তা জানা না থাকলেও এমন একটা ইঙ্গিত কিন্তু পাওয়া গেল। করোনাভাইরাস মহামারির ধাক্কায় যখন বিশ্বজুড়ে উড়ান সংস্থাগুলি হাবুডুবু খাচ্ছে, সেই সময়ে দাঁড়িয়ে ইন্ডিগো, অর্থাৎ ভারতের সর্ববৃহৎ বেসরকারি উড়ান সংস্থা ইন্ডিগো-র পরিচালক গোষ্ঠী 'ইন্টারগ্লোব এন্টারপ্রাইজেস' জানালো, তারা ভার্জিন অস্ট্রেলিয়া উড়ান সংস্থার শেয়ার কিনতে আগ্রহী, বিক্রয়ে অংশ নেওয়ার জন্য একটি চুক্তি স্বাক্ষর করেছে।

গত ২১ এপ্রিল দেউলিয়া ঘোষণা করা হয়েছিল অস্ট্রেলিয়ার দ্বিতীয় বৃহৎ উড়ান সংস্থা 'ভার্জিন অস্ট্রেলিয়া' সংস্থাকে। এতে প্রায় ১৬০০০ মানুষের চাকরি চলে যাওয়ার ঝুঁকি তৈরি হয়েছে। তাই সংস্থার শেয়ার বিক্রি করা ছাড়া উপায় নেই। এই অবস্থায় দু'দিন আগেই খবর পাওয়া গিয়েছিল যে ইন্ডিগো এয়ারলাইন্স এই বিষয়ে আগ্রহী। তবে ভার্জিন অস্ট্রেলিয়া সেই খবর অস্বীকার করেছিল। এদিন ইন্টারগ্লোব এন্টারপ্রাইজেস জানিয়েছে, 'ভার্জিন অস্ট্রেলিয়া-র বিক্রয় প্রক্রিয়ায় অংশ নেওয়ার জন্য ইন্টারগ্লোব এন্টারপ্রাইজেস একটি চুক্তি স্বাক্ষর করেছে এবং সেই চুক্তির গোপনীয়তার প্রয়োজনীয়তার দ্বারা আবদ্ধ থাকায় আমরা এই পর্যায়ে আর কিছু বলতে পারছি না'। প্রসঙ্গত, বিলিয়নেয়ার রাহুল ভাটিয়ার এই সংস্থার হাতে ইন্ডিগো-র ৩৭.৮৭ শতাংশের মালিকানা রয়েছে।

বিক্রয় প্রক্রিয়ার জন্য একজন অস্ট্রেলিয় পরামর্শদাতা নিযুক্ত করেছেন রাহুল ভাটিয়া, বলে জানা গিয়েছে। সূত্রের খবর, ইন্ডিগো ভার্জিন সংস্থাকে তার শিকড়ে ফিরিয়ে আনতে আগ্রহী। অর্থাৎ, যে কম দামের উড়ান সংস্থা হিসাবে যাত্রা শুরু করেছিল ভার্জিন অস্ট্রেলিয়া, সেই কমদামের কেরিয়ার হিসাবেই তাকে পুনপ্রতিষ্ঠার ভাবনা রয়েছে। তা সফল হলে, তার পরের ধাপে বিভিন্ন ঝুঁকি নেওয়া হবে এবং বড় লাভের প্রত্যাশা করা হবে।

করোনাভাইরাস মহামারী ছড়িয়ে পড়ার আগে থেকেই ধুঁকছিল এই সংস্থা। বিপুল ঋণ সঙ্কটে ডুবে গিয়েছিল। আর তারপর কোভিড-১৯'এর ধাক্কায় একেবারেই বন্ধ হয়ে যায়। সরকারের কাছ থেকে সংস্থাটি ১.৪ বিলিয়ন অস্ট্রেলিয় ডলার বা ভারতীয় মুদ্রায় প্রায় ৯ কোটি টাকা ঋণের জন্য আবেদন করেছিল। কিন্তু সরকার তা প্রত্যাখ্যান করে। তারপরই সংস্থাটি নিজেদের দেউলিয়া ঘোষণা করে এবং বিক্রয়ের জন্য প্রশাসক নিয়োগ করা হয়। এই এয়ারলাইন্সের বর্তমান প্রধান শেয়ার হোল্ডাররা হল সিঙ্গাপুর এয়ারলাইনস, এতিহাদ এয়ারওয়েজ এবং চিনা বিনিয়োগ সংস্থাগুলির গোষ্ঠী নানশন গ্রুপ এবং এইচএনএ গ্রুপ। ব্রিটিশ বিলিয়নেয়ার রিচার্ড ব্র্যানসনেরও ১০ শতাংশ অংশীদারী রয়েছে।

প্রথম দফার দরপত্র ১৫ মে-র মধ্যে জমা দিতে হবে।জুনের মধ্যে বাইন্ডিং অফার এবং ওই মাসের শেষের দিকেই চুক্তি পাকা করে ফেলাই ভার্জিন সংস্থার বর্তমান প্রশাসকদের লক্ষ্য। করোনাভাইরাস মহামারির ধাক্কা বিশ্বের প্রতিটি উড়ান সংস্থার গায়েই তীব্রভাবে লেগেছে। তবে ভার্জিন অস্ট্রেলিয়াই দেউলিয়া সুরক্ষার আবেদন করা প্রথম বড় উড়ান সংস্থা।