২৯ বছর ধরে ভেলোর মহিলা কারাগারে বন্দি আছে সে। কোনওদিন এমন আচরণ দেখা  যায়নি। সোমবার রাতে আচমকা আত্মহত্যার চেষ্টা করল নলিনী শ্রীহরণ। প্রয়াত প্রধানমন্ত্রী রাজীব গান্ধীর হত্যার মামলায় দণ্ডিত আসামী। মঙ্গলবার সকালে এমনটাই জানিয়েছেন তার আইনজীবী পুগলনথি।

পুগলনথি-র দাবি গত ২৯ বছরে এই প্রথম নলিনী শ্রীহরণ এইরকম চরম পদক্ষেপ নেওয়ার চেষ্টা করেছেন। কাজেই তার এই আচরণ অত্যন্ত রহস্যজনক। এর পিছনে 'আসল কারণ' কী তা জানার জন্য তদন্তের দাবি করেছেন তিনি। পুগলনথির দাবি, নলিনীর সঙ্গে গত কয়েকদিন ধরে আরেকজন যাবজ্জীবন কারাদণ্ডে দণ্ডিত আসামীর ঝগড়া চলছিল। জেলের অন্যান্য বন্দিরা বিষয়টি জেলার-এর কাছে জানিয়েছিল। এরপরই নলিনী আত্মহত্যা করার চেষ্টা করে বলে অভিযোগ তার আইনজীবীর।

তিনি আরও জানিয়েছেন এই ঘটনার খবর পেয়ে উদ্বিগ্ন নলিনীর স্বামী মুরুগান। রাজীব গান্ধীর হত্যা মামলার আরেক আসামী সে। মুরুগানও এখন যাবজ্জীবন কারাদণ্ডে দণ্ডিত। সে পুগলনতির কাছে নলিনীকে ভেলোর কারাগার থেকে পুজল কারাগারে স্থানান্তর করার অনুরোধ করেছে। নলিনীর আইনজীবী জানিয়েছেন, তার সেই অনুরোধের ভিত্তিতে শীঘ্রই আইনী অনুরোধ করা হবে।

১৯৯১ সালের ২১ মে শ্রীপেরুমবুদুর-এ এক নির্বাচনী সমাবেশে এলটিটিইর আত্মঘাতী বোমা হামলায় নিহত হয়েছিলেন প্রাক্তন প্রধানমন্ত্রী রাজীব গান্ধী। এই হত্যাকাণ্ডে জড়িত থাকার দায়ে এক বিশেষ টাডা আদালত নলিনী শ্রীহরণ ও তার স্বামী মুরুগান-সহ সাত জনকে দোষী সাব্যস্ত করেছিল। প্রথমে তাদের সকলকে মৃত্যুদণ্ডই দেওয়া হয়েছিল, কিন্তু পরে সাস্তি কমিয়ে যাবজ্জীবন কারাদণ্ড দেওয়া হয়।