নাগরিকত্ব সংশোধনী আইন নিয়ে দেশজুড়ে চলছে প্রতিবাদ-আন্দোলন-মিছিল-মিটিং। দেশে নিরাপদ নন সংখ্যালঘুরা। বিজেপি বিরোধী দলগুলি এমনই প্রচার চালাচ্ছে। এই প্রতিবাদ আন্দোলনে যথেষ্ট বেকায়দায় মোদী সরকার। নাগরিকত্ব আইনের সমর্থনে পাল্টা প্রচারে নেমেছে গেরুয়া শিবিরও। এমনও এক প্রচারসভা থেকে মুসলিমদের আশ্বস্ত করলেন প্রতিরক্ষামন্ত্রী রাজনাথ সিং।

আপনারা এই দেশে নিরাপদ, কেউ স্পর্শ করতে পারবে না, প্রয়োজনে সরকারের কাছে আসুন। জনসভা থেকে বললেন পদ্মশিবিরের অন্যতম গুরুত্বপূর্ণ এই নেতা তথা দেশের প্রতিরক্ষামন্ত্রী।

উত্তরপ্রদেশের মেরঠের শতাব্দীনগরে নাগরিকত্ব আইনের সমর্থনে প্রচারে যোগ দিয়েছিলেন রাজনাথ। সেখানেই তিনি দাবি করেন, স্বাধীনতার পরেই দেশে এনআরসি নিয়ে আলোচনা শুরু হয়েছিল এবং অসমই প্রথম রাজ্য যেখানে এটি কার্যকর করা হয়েছিল। রাজীব গান্ধীর সরকারের আমোলেই এই নিয়ে আলোচনা শুরু হয়। " আমরা এটি এখন চালু করেছি তাই কংগ্রেস বিজেপির উপর আক্রমণ শানাচ্ছে।"

রাজনাথ আরও বলেন, বাংলাদেশ, আফগানিস্তান ও পাকিস্তান থেকে ধর্মের ভিত্তিতে হয়রানি শিকার হয়ে আসা মানুষদের জন্যই নাগরিকত্ব আইন। পিছিয়ে পড়া মানুষই এর ফলে সবচেয়ে ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছেন, সেইসব শরণার্থী মানুষদেরই নাগরিকত্ব দেবে এই আইন। এই বিষয়ে মহাত্মা গান্ধীকেও টেনে আনেন তিনি। এই নিপীড়িত মানুষদের নাগরিকত্ব দেওয়ার পক্ষে ছিলেন গান্ধীজি, পরবর্তী সময় প্রাক্তন প্রধানমন্ত্রী মনমোহন সিংও একই মত পোষন করতেন। বক্তব্য রাখতে গিয়ে বলেন রাজনাথ। 

জনসভায় এদিন জাতীয় জনসংখ্যা নিবন্ধক (এনপিআর)-এর সমর্থনেও মুখ খোলেন দেশের প্রতিরক্ষামন্ত্রী। দেশের সামাজিক ও কল্যাণমূলক পরিকল্পনা তৈরিতে এনপিআর-এর প্রয়োজন রয়েছে।