সংশোধিত  নাগরিকত্ব আইনের প্রতিবাদে রাজধানী দিল্লির রাজপথে ১৪ ডিসেম্বর ডিসেম্বর থেকে চলছে প্রতিবাদ। গত এক মাস ধরে হাজার হাজার বিক্ষোভকারী শাহিনবাগে অবস্থান বিক্ষোভে জড়ো হয়েছেন। প্রতিবাদ আন্দোলনে এগিয়ে এসেছেন মুসলিম মহিলারাও। আর এই আন্দোলন ক্রমেই মাথা ব্যাথার কারণ হয়ে উঠছে মোদী সরকারের। বাড়ছে অস্বস্তিও। 

শাহিনবাগের আন্দোলন নিয়ে বিজেপি নেতৃত্ব একাধিকবার কটাক্ষ করেছেন। এমনকি শাহিনবাগে ধরণায় বসা প্রতিবাদীদের টুকরে টুকরে গ্যাঙ বলে আক্রমণ করেছেবন দেশের আইনমন্ত্রী রবিশঙ্কর প্রসাদ। মন্ত্রীর দাবি ছিল, শান্তিপ্রি. মানুষ যেখানে সংশোধিত নাগরিকত্ব আইন মেনে নিয়েছে সেখানে মাত্র গুটি কয়েক মানুষ শাহিনবাগে বসে প্রতিবাদ দেখাচ্ছে। 

গুটিকয়েক মানুষের আন্দোলন নিয়েই এবার ভিন্নসুর আইনমন্ত্রীর গলায়। সর্বভারতীয় টিভি চ্যানেলের একটি অনুষ্ঠানে অংশ নিয়ে রবিশংকর প্রসাদ দাবি করেন নাগরিকত্ব আইন নিয়ে শাহিনবাদের আন্দোলনকারীদের নিয়ে বৈঠকে বসতে প্রস্তুত মোদী সরকার। তবে সেই বৈঠক হতে হবে কাঠামোগত আকারে। বৈঠকে নাগরিকত্ব আইন নিয়ে তৈরি হওয়া ধোঁয়াশা দূর করতে চায় কেন্দ্র। নিজের ট্যুইটার অ্যাকাউন্টে এই বার্তা দিয়ে পোস্টও করেন কেন্দ্রীয় আইনমন্ত্রী।

 

সামনেই দিল্লির বিধানসভা নির্বাচন। শাহিনবাগের এই আন্দোলনকে নেজেদের নির্বাচনী ইস্যু করছে কংগ্রেস, আম আদমি পার্টির মত বিজেপি বিরোধী দলগুলি। সেই কারণেই বিজেপি এবার আন্দোলনকারীদের সঙ্গে আলোচনার পথে এগোচ্ছে বলে মনে করছেন রাজনৈতিক বিশেষজ্ঞরা।