নাগরিকত্ব সংশোধনী আইন বিরোধী আন্দোলনে হঠাৎ পড়ল অযোধ্যার ছায়া। গত বছর ৯ নভেম্বর সুপ্রিম কোর্ট তার রায়ে জানিয়েছিল অযোধ্যার বিতর্কিত জমিতে রাম মন্দিরই হবে। দুই মাস কেটে যাওয়ার পর এবার অযোধ্যায় ফের বাবরি মসজিদ নির্মাণের আওয়াজ তুললেন সমাজবাদী পার্টির বিশিষ্ট নেতা আবু আজমির ছেলে ফারহান আজমি। এক সিএএ বিরোধী সভায় তিনি বলেছেন, মহারাষ্ট্রের মুখ্যমন্ত্রী উদ্ধব ঠাকরে যদি অযোধ্যায় যান, তবে তাঁদের দলের কর্মীরাও সেখানে যাবেন বাবরি মসজিদটি নির্মাণ করতে।

সোমবার এক সিএএ বিরোধী সবায় ফারহান আজমি বলেন, যদি মহারাষ্ট্রের মুখ্যমন্ত্রী হয়ে উদ্ধব ঠাকরে ৭ মার্চ অযোধ্যায় যান, তাহলে তিনিও তাঁর সঙ্গে যাবেন। তিনি যদি ভগবান রামের মন্দির তৈরি করেন তাহলে তিনি ও তাঁর দলের কর্মীরা মিলে বাবরি মসজিদ তৈরি করবেন। তিনি আরও দাবি করেন মহারাষ্ট্রের মুখ্যমন্ত্রীর প্রস্তাবিত এই সফরের কারণে মুসলিম সম্প্রদায়ের মধ্যে উদ্বেগের পরিবেশ তৈরি হয়েছে।

আগামী ৭ মার্চ মহারাষ্ট্রের মুখ্যমন্ত্রী হিসেবে ১০০ দিন পূর্ণ হচ্ছে শিবসেনা প্রধান উদ্ধব ঠাকরের। ওই দিন অযোধ্যা সফরে যাওয়ার কথা ঘোষণা করেছেন মহারাষ্ট্র বিকাশ আগাড়ি সরকারের মুখ্যমন্ত্রী উদ্ধব ঠাকরে। সেখানে তাঁর রামলালার পুজো করার কথা এবং সরায়ু নদীর তীরে 'আরতি' করার কথা। সম্প্রতি শিবসেনা নেতা সঞ্জয় রাউত সোশ্য়াল মিডিয়ায় এই কতা জানান। সারা দেশ থেকে হাজার হাজার শিবসৈনিক-ও সেখানে উপস্থিত থাকবেন বলে জানিয়েছেন তিনি।

এরপরই ফারহান আজমি এই এই মন্তব্য করেন। তবে তাঁর বক্তব্যকে ধর্তব্যের মধ্য়েই আনথে না শিবসেনা। মহারাষ্ট্রের মন্ত্রী তথা শিবসেনা নেতা উদয় সামন্ত বলেছেন, আগের পরিকল্পনা বদলানোর কোনও প্রশ্নই নেই। নির্বাচনের আগে থেকেই উদ্ধব ঠাকরে অযোধ্যায় যাওয়ার সিদ্ধান্ত নিয়েছেন বলে দাবি তাঁর। সঞ্জয় রাউত বলেছেন, এই সফরের জন্য উদ্ধব জনতার কাছে 'প্রতিশ্রুতিবদ্ধ' এবং এটা তাঁর 'ধর্মীয় বিশ্বাসের বিষয়', এর পিছনে রাজনীতি খোঁজার মানে হয় না।