ধর্ষণ মামলায় অভিযুক্ত 'তহেলকা'-র সম্পাদক তরুণ তেজপালের বিরুদ্ধে মামলা বাতিল করা যাবে না, এমনটাই সাফ জানিয়ে দিল সুপ্রিম কোর্ট। তাঁর অধীনে কর্মরত এক মহিলাকে ধর্ষণের অভিযোগ উঠেছিল 'তহেলকা'-র সম্পাদক তরুণ তেজপালের বিরুদ্ধে। সোমবার সুপ্রিম কোর্টের তরফে জানানো হয়েছে যে, তরুণ তেজপালের বিরুদ্ধে যে অভিযোগ তোলা হয়েছে, তা অত্যন্ত গুরুতর। 

প্রসঙ্গত বর্ষীয়ান সাংবাদিক তরুণ তেজপালের বিরুদ্ধে অভিযোগ তোলা হয় যে, ২০১৩ সালে গোয়ায়য় 'তহেলকা'আয়েজিত একটি ইভেন্টে তাঁর এক মহিলা সহকর্মীকে ধর্ষণের অভিযোগ আনা হয়। অ ভিযোগকারী ওই তরুণীর দাবি গোয়ায় যে পাঁচতারা হোটেলে ইভেন্টটি চলছিল সেই সময়েই লিফটের মধ্যে তাঁকে যৌন হেনস্থা করেন তরুণ তেজপাল। এরপর অভিযোগকারী তরুণী গোটা বিষয়টি নিজের সিনিয়র-সহ ই-মেল করেন 'তহেলকা'র ম্যানেজিং এডিটরকেও। এরপর সেই ই-মেল সাংবাদ মাধ্যমের কাছে চলে আসার পর বিষয়টি প্রকাশ্যে আসে। 

এরপর চাপের মুখে পদ ছাড়তে বাধ্য হন তরুণ তেজপাল। সেই বছরই নভেম্বর মাসে গ্রেফতার করা হয় তাঁকে। ২০১৪-র মে-তে অবশ্য তিনি জামিন পেয়ে যান। তাঁর বিরুদ্ধে চার্জশিট পেশ হয় গোয়ার ফাস্ট ট্র্যাক আদালতে। পুলিশ জানায়, তাঁর অপরাধের সপক্ষে অনেক প্রমাণ রয়েছে। এরপর বম্বে আদালতের কাছে মামলা খারিজের আবেদন করা হলে, তাঁর আবেদন প্রত্যাখ্যান করে বম্বে হাইকোর্ট। 

এরপর তরুণ তেজপাল শীর্ষ আদালতের কাছে আবেদন জানিয়েছিলেন যে, তাঁর বিরুদ্ধে আনা ধর্ষণের অভিযোগ যেন খারিজ করে দেওয়া হয়। কিন্তু এদিন তাঁর বিরুদ্ধে আনা ধর্ষণের অভিযোগ কেবলমাত্র খারিজই করেনি সুপ্রিম কোর্ট বরং আগামী ছ'মাসের মধ্যে মামলার নিস্পত্তির নির্দেশ দিয়েছে শীর্ষ আদালত।