আধুনিক বিশ্বের কাছে সন্ত্রাসবাদ একটি বড় চ্যালেঞ্জ। বিকস সম্মেলন ২০২০ তে রীতিমত জোরের সঙ্গেই বললেন প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী।  শুধু সন্ত্রাসবাদী নয়, যেসব দেশগুলির সন্ত্রাসবাদে মদত দিচ্ছে তাদেরও একঘরে করা উতিৎ বলে মন্তব্য করেন নরেন্দ্র মোদী। যেসবদেশগুলি সন্ত্রাসবাদে মদত দিচ্ছে তারাও সমান অপরাধী বলেও মন্তব্য করেন তিনি। সন্ত্রাসবাদের বিরুদ্ধে ঐক্যবদ্ধ হয়ে লড়াই করতে হবে। বিকসের বৈঠকে এদিন প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদীর সঙ্গে মঞ্চ ভাগ করে নিয়েছিলেন রাশিয়া ও ব্রাজিলের রাষ্ট্রপ্রধান ভ্লাদিমির পুতিন ও জায়ের বোলসোনেরো। এদিনের সম্মেলনে উপস্থিত ছিলেন চিনা প্রেসিডেন্ট শি জিংপিং। 

ব্রিকসের বৈঠকে প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী বলেন, মহামারির বিরুদ্ধে  ব্রিকস অন্তর্ভুক্ত দেশগুলির ঐক্যবদ্ধ হয়ে লড়াই করতে হবে। তিনি বলেন করোনাভাইরাসের প্রতিষেধক এলে তা সরবরাহের জন্য একজোট হয়ে কাজ করতে হবে। তিনি আরও বলেন সন্ত্রাসবাদ মোকাবিলার পাশাপাশি করোনা মহামারির বিরুদ্ধেও লড়াই করার ক্ষমতা রাখে বলেও তিনি জানিয়েছেন। মহামারির এই বিশ্বের বহু দেশকে ওষুধ পাঠিয়ে সাহায্য করেছে ভারত। পাশাপাশি প্রতিষেধক তৈরিতে ভারত এগিয়ে রয়েছে বলেও দাবি করেন তিনি। তিনি বলেন আত্মনির্ভর ভারত গঠনের যজ্ঞ চলছে তাঁর দেশে। 

ব্রিকসভুক্ত দেশগুলির মধ্যে বাণিজ্য বাড়ানোর কথাও তিনি বলেন।  তিনি বলেন মহামারি পরবর্তী পরিস্থিতি ভারতের ভূমিকা আরও বাড়বে বলেও আশা প্রকাশ করেছেন। তিনি বলেন ডিজিটাল হেল্ফ ও প্রাচিন ওষুধ নিয়ে ব্রিকসভুক্তদেশগুলির মধ্যে সহযোগিতা বাড়াতে আগ্রহী বলেও জানিয়েছেন তিনি। পাশাপাশি তিনি জানিয়েছেন ব্রিকসভুক্তদেশগুলির নানা বিষয়ে সহযোগিতা বাড়ানোর কথাও তিনি বলেন। দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধের ৭৫তম বার্ষিকী উপলক্ষ্যে সম্মিলিত দেশগুলির ঐক্যবদ্ধ কর্মসূচি গ্রহণের কথাও বলেন প্রধানমন্ত্রী।