জ্ঞানবাপী মামলায় মুসলিম পক্ষের বড় ধাক্কা, শিবলিঙ্গ পুজোর আর্জি শুনতে প্রস্তুত আদালত

| Nov 19 2022, 12:10 AM IST

Gyanvapi masjid

সংক্ষিপ্ত

পিটিশনে হিন্দু পক্ষের পক্ষ থেকে অনুরোধ করা হয়েছিল যে স্ব-ঘোষিত জ্যোতির্লিঙ্গের পূজা অবিলম্বে শুরু করা হোক এবং প্রাঙ্গণটি হিন্দুদের কাছে হস্তান্তর করা হোক। সিভিল জজ সিনিয়র ডিভিশন মহেন্দ্র কুমার পান্ডের আদালত বলেছেন যে এই আবেদনটি শুনানিযোগ্য।

জ্ঞানবাপী শ্রিংগার গৌরী ক্যাম্পাস মামলায় বড়সড় ধাক্কা খেল মুসলিম পক্ষ। আদালত সাত নম্বর আবেদন খারিজ করে দিয়েছে। আদালত বলেছে, এই আবেদনটি শুনানিযোগ্য। বৃহস্পতিবার ফাস্ট ট্র্যাক কোর্ট এই রায় দিয়েছে। হিন্দু পক্ষ বলেছে, আদালতের রায় আমাদের পক্ষে, এটা আমাদের জয়। পিটিশনে হিন্দু পক্ষের পক্ষ থেকে অনুরোধ করা হয়েছিল যে স্ব-ঘোষিত জ্যোতির্লিঙ্গের পূজা অবিলম্বে শুরু করা হোক এবং প্রাঙ্গণটি হিন্দুদের কাছে হস্তান্তর করা হোক। সিভিল জজ সিনিয়র ডিভিশন (ফাস্ট ট্র্যাক কোর্ট) মহেন্দ্র কুমার পান্ডের আদালত বলেছেন যে এই আবেদনটি শুনানিযোগ্য।

কোন আবেদনে আদালত শুনানি করেছেন?

Subscribe to get breaking news alerts

জ্ঞানবাপী মসজিদ কমপ্লেক্স সম্পর্কিত ভগবান আদি বিশ্বেশ্বর বিরাজমান মামলায় বিশ্ব বৈদিক সনাতন সংঘের প্রধান জিতেন্দ্র সিং বিসেনের স্ত্রী কিরণ সিং 'বিসেন' একটি পিটিশন দায়ের করেছিলেন। তার করা আবেদনের ওপর যুক্তিতর্ক উপস্থাপন শেষ হয়েছে। আদেশ ৭ বিধি ১১-এ এখন মামলার রক্ষণাবেক্ষণের বিষয়ে আদালতের একটি বড় সিদ্ধান্ত বেরিয়ে এসেছে।

হিন্দু পক্ষের প্রধান দাবিগুলো কী কী?

১. স্বয়ম্ভু জ্যোতির্লিং ভগবান বিশ্বেশ্বরের পূজা শুরু করার অনুমতি।

২. সমগ্র জ্ঞানবাপী কমপ্লেক্স হিন্দুদের কাছে হস্তান্তর করা উচিত।

৩. জ্ঞানবাপী ক্যাম্পাসে মুসলমানদের প্রবেশ নিষিদ্ধ করা উচিত।

মামলার পরবর্তী শুনানি কবে?

আদালত আগামী ২ ডিসেম্বর শুনানির দিন ধার্য করেছেন। পিটিশনের রায়ে মুসলিম পক্ষ অসন্তুষ্ট। মুসলিম পক্ষ চেয়েছিল আবেদনটি সম্পূর্ণভাবে খারিজ করা হোক।

শিবলিঙ্গ রক্ষার নির্দেশ দিয়েছিল সুপ্রিম কোর্ট

সুপ্রিম কোর্ট সম্প্রতি বলেছিল যে শিবলিঙ্গের মতো কাঠামোর চারপাশের জায়গা সুরক্ষিত রাখতে হবে। সুপ্রিম কোর্ট তার পুরনো আদেশের মেয়াদ বাড়িয়েছে। ১৭ মে দেওয়া আদেশে, সুপ্রিম কোর্ট শিবলিঙ্গের চারপাশের জায়গা সংরক্ষণের নির্দেশ দিয়েছিল। আদালতে শুনানির সময় একের পর এক মুসলিম পক্ষ ধাক্কা খাচ্ছে।

শিবলিঙ্গের তদন্ত করতে নিষেধ আদালতের

আদালত জ্ঞানবাপী ক্যাম্পাসে সমীক্ষার সময় পাওয়া 'শিবলিঙ্গ'-এর বৈজ্ঞানিক তদন্ত করতে অস্বীকার করেছিল। আদালত আবেদনটি খারিজ করে দেন। মুসলিম পক্ষ একে ঝর্ণা বলে দাবি করছে। জেলা আদালতের সিদ্ধান্তের পর হিন্দু পক্ষ এই বিষয়টি নিয়ে সুপ্রিম কোর্টে পৌঁছেছে।

জ্ঞানবাপী বিরোধ নিয়ে হাইকোর্টে ৫টি পিটিশন

এলাহাবাদ হাইকোর্টে বারাণসীর জ্ঞানবাপী বিরোধ সম্পর্কিত মোট পাঁচটি পিটিশন দায়ের করা হয়েছে। এর মধ্যে তিনটি আবেদনের ওপর শুনানি শেষ হয়েছে। দুটি পিটিশনে একটি ব্যবস্থা কমিটির পক্ষ থেকে এবং অন্যটি সুন্নি ওয়াকফ বোর্ডের তরফে দায়ের করা হয়েছে। আবেদনে, মুসলিম পক্ষ বিষয়টিকে উপাসনালয় আইন ১৯৯১ এবং ওয়াকফ আইন ১৯৯৫ দ্বারা বাধা হিসাবে অভিহিত করেছে। বারাণসীর দেওয়ানী আদালতের নির্দেশ এই দুটি আইনের বিরুদ্ধে। জ্ঞানবাপী চত্বরে শ্রিংগার গৌরীর নিয়মিত পূজার অনুমতি দেওয়ার বিষয়ে মসজিদের আয়োজন কমিটির তরফে এই আবেদন করা হয়েছে।