এবার  বিচারের দাবি চেয়ে বিক্ষোভে নামলেন  আইনের রক্ষকরা।  রাজধানীর বুকে উর্দি পড়েই নিজেদের সদরদপ্তরের সামনে বিক্ষোভে বসলেন দিল্লর পুলিশকর্মীরা।  প্রায় হাজার খানেক  পুলিশ কর্মীর বিক্ষোভে পরিস্থিতি এতটাই ঘোরালো হয়ে যায় যে সদর দপ্তরের বাইরে বেরিয়ে আসেন দিল্লির পুলিশ কমিশনার পট্টনায়ক। তিনি বিক্ষোভকারী পুলিশকর্মী দেয় শান্ত হওয়ার অনুরোধ করেন।  উপযুক্ত ব্যবস্থা নেওয়া হবে বলেও তিনি আশ্বাস দেন।  কিন্তু তাতে চিঁড়ে ভেজে না। দিল্লিতে পুলিশের সদর দপ্তরের সামনে  অবস্থান বিক্ষোভ অব্যাহত রাখেন উর্দিধারীরা বলে জানা গিয়েছে। 

 

কীসের বিচারের দাবিতে দিল্লির পুলিশ ক্ষোভে ফেটে পড়ছে ? বিচার চাইছে? ঘটনার সূত্রপাত ২ নভেম্বর। দিল্লির তিসহাজারি আদালতের পার্কিং এলাকায় এক আইনজীবীর গাড়িতে  পুলিশের গাড়ি  ধাক্কা লাগার ঘটনায় উত্তেজনা ছড়িয়ে পড়ে। হিংসা ছাড়িয়ে পড়ে আদালত ও পার্শ্ববর্তী এলাকায়।  আইনজীবীদের হামলায় ২০ জন পুলিশ কর্মী আহত হন বলে অভিযোগ।  দিল্লি পুলিশ অভিযোগ করেছে,  উত্তেজিত আইনজীবীরা একের পর এক পুলিশের গাড়ি ভাঙচুর করে দেয়। আইনজীবীরা পুলিশের গাড়িতে আগুনও ধরিয়ে দেয় বলে অভিযোগ উঠেছে। 

 

যদিও আইজীবীরা পুলিশের বিরুদ্ধে পালটা অভিযোগ নিয়ে এসেছে। অভিযোগে আইনজীবীরা জানিয়েছেন, তাঁদের দিকে লক্ষ্য করে পুলিশ গুলি চালিয়েছে। গাড়িতে তুলে পুলিশ আইনজীবীদের মারধর করেছে। 

মঙ্গলবার সকাল থেকেই দিল্লির সদর দপ্তরের সামনে পুলিশ কর্মীরা জমা হতে থাকেন। তবে তাঁরা কোনও স্লোগান বা চিৎকারে এই অবস্থান বিক্ষোভ করেননি।  হাতে থাকে শুধু প্ল্যাকার্ড। যেখানে লেখা আছে, ' আমরা দুঃখিত, আমরা পুলিশ, আমাদের কোনও পরিবার নেই, আমাদের কোনও  মানবাধিকার নেই।'  কেউ কেউ প্ল্যাকার্ডে লেখেন,  'আমরা ঘটনার বিচার চাই।'