প্রাকৃতিক সৌন্দর্যে অতুলনীয় উত্তর পূর্বের রাজ্যগুলি। আগামী দিনে উত্তর পূর্বের রাজ্যগুলির দেশি অন্যতম পর্যচন কেন্দ্র হিসেবে আত্মপ্রকাশ করবে। 'গন্তব্য উত্তর পূর্ব ২০২০' উদ্বোধনের পর এমনই দাবি করেছেন কেন্দ্রীয় স্বরাষ্ট্র মন্ত্রী অমিত শাহ। এই প্রকল্পের মধ্যে উত্তর পূর্বের রাজ্যগুলিকে রেল, সড়ক আর বিমান যোগাযোগের মধ্যমে দেশের বাকি অংশের সঙ্গে যুক্ত করার একটি পরিকল্পনা গ্রহণ করেছেন প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী। উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে সেকথাও জানাতে ভোলেননি অমিত শাহ। 

ভিডিও কনফারেন্সে মাধ্যমে এই 'ডেস্টিনেশন উত্তর পূর্ব ২০২০' অনুষ্ঠানের সূচনা করেন অমিত শাহ। তিনি উত্তর পূর্ব কাউন্সিলের চেয়ারম্যানও। রবিবারের সেই অনুষ্ঠানে উপস্থিত ছিলেন আটটি রাজ্যের মুখ্যমন্ত্রী। অমিত শাহ বলেন, তিনি দেশ ও বিদেশের অনেক স্থানই ভ্রমণ করেছেন। উত্তর পূর্ব রাজ্যগুলির প্রাকডতিক সৌন্দর্যের তিনি মুগ্ধ। তিনি আরও বলেন  প্রধানমন্ত্রীর নেতৃত্বে এই এলাকাটি আগামী দিনে একটি পর্যটন আর ব্যবসায়িক গন্তব্য হিসেবে আত্মপ্রকাশ করবে। তিনি আরও বলেন নরেন্দ্র মোদী স্বাধীন ভারতের প্রথম প্রধানমন্ত্রী যিনি একাধিকবার এই এলাকা সফর করেছেন।উন্নয়নের জন্য একটি সঠিক পরিকল্পনা গ্রহণ করেছেন। আগের তুলনায় উন্নয়ন তহবিলে ব্যয় বরাদ্দ বৃদ্ধি করেছেন। মোদী সরকারের প্রচেষ্টায় এলাকায় জঙ্গিদের তৎপরতা অনেকটাই কমেছে। গত ৬ বছরে ৮টি জঙ্গি সংগঠনের ৬৪১ জন সদস্য আত্মসমর্পন করেছেন বলেও দাবি করেছেন অমিত শাহ। এলাকায় উন্নয়নের জন্য় জৈব চাষ থেকে স্মার্ট অ্যাপ সবকিছুর ওপর জোর দেওয়া হয়েছে।  

এদিনের অনুষ্ঠানে কেন্দ্রীয় মন্ত্রী অমিত শাহ উত্তর পূর্ব ভারতকে মূল্যবান রত্নের সঙ্গে তুলনা করেন। তিনি বলেন, উত্তর পূর্ব ভারতের সঙ্গে উত্তর পশ্চিম ভারতের সংযোগ তৈরি করাই তাঁর সরকারের একটি গুরুত্বপূর্ণ লক্ষ্য। কারণ এই এলাকা ছাড়া ভারতীয় সংস্কৃতি অপূর্ণ থেকে যায় বলেও দাবি করেন অমিত শাহ। তিনি বলেন, ৩০ সেপ্টেম্বর  পর্যন্ত চলবে এই অনুষ্ঠান। এলাকার উন্নয়নে এটি একটি ক্যালেন্ডার ইভেন্ট। এলাকাটিকে জনপ্রিয় করতেই এই উদ্যোগ নেওয়া হয়েছে। তবে চার দিনের এই অনুষ্ঠানে এলাকার সংস্কৃতি, হস্তশিল্প, ঐতিহ্যবাসী জামাকাপড় প্রভৃতি বিষয়ে ভার্চুয়াল প্রদর্শনীর ব্যবস্থা করা হয়েছে। যেখানে ৮টি রাজ্যই অংশ নেবে। পাশাপাশি ৮টি রাজ্যের সংমিশ্রণের একটি মডেল পরিবেশনা ব্যবস্থাও করা হয়েছে।