সবাইকে চমকে দিল জোম্যাটো। ফবার সংস্থার খাদ্য সরবরাহকারী অংশ অর্থাৎ উবার ইটস অধিগ্রহণ করে নিল এই ভারতীয় অনলাইন খাদ্য বিতরণ এবং রেস্তোঁরা খোঁজার সংস্থাটি। নয়া চুক্তির ফলে উবার ইটস-এর যাবতীয় ব্যবসা এখন জোম্যাটোর হাতে চলে গেল। দুই সংস্থার মিলিত সংস্থার মাত্র ৯.৯ শতাংশ অংশীদারী হাতে থাকছে উবার-এর। তাহলে কী উবার ইটস থেকে আর খাবার অর্ডার করা যাবে না?

বস্তুত, ভারতে তাদের যাবতীয় ক্রিয়াকলাপ বন্ধ করে দিচ্ছে উবার ইটস। তাদের সঙ্গে যেসব রেস্তোরাঁ, সরবরাহকারী অংশীদার সংস্থার চুক্তি রয়েছে তাদের সঙ্গে জোম্যাটোর চুক্তি করা হচ্ছে। সেই সঙ্গে উবার ইটস অ্যাপের ইউজারদের পাঠানো হচ্ছে জোম্যাটো অ্যাপের প্ল্যাটফর্মে। মঙ্গলবার সকাল থেকেই উবার ইটস অ্যাপটি খুললে জানানো হচ্ছে দুই সংস্থার হাত মেলানোর কথা। আর তারপরই একটি অপশন দেওয়া হচ্ছে জোম্যাটো-র অ্যাপে যাওয়ার। জোম্যাটোর প্ল্যাটফর্মেও প্রথমেই জানানো হচ্ছে উবার-এর সঙ্গে চুক্তির সংবাদ। অর্থাৎ উবার ইটস অ্যাপটি এদিনের পর থেকে আর কার্যকর থাকল না।

২০১৭ সালে ভারতে খাদ্য সরবরাহের ব্যবসায় নেমেছিল উবার সংস্থা। কিন্তু, ততদিনে রমরমিয়ে চলছে সুইগি এবং জোম্যাটো। অধিকাংশ বড় রেস্তোরাঁ এবং রেসতোরাঁ চেইনের সঙ্গে এই দুই সংস্থাই অংশিদারী গড়ে ফেলেছিল। ফলে সেইভাবে বাজার ধরতে পারেনি উবার। বাকি থাকা রেস্তোরাঁগুলি নিয়ে কোনওমতে ধুঁকতে ধুঁকতে এতদিন চালানোর পর এইবার ভারতের ব্যবসাপত্তর তুলে দেওয়ার সিদ্ধান্ত নেয় তারা।

প্রত্যাশা করা হচ্ছে জোম্যাটো এবং উবার ইটস ইন্ডিয়া সম্মিলিতভাবে ভারতের খাদ্যসরবরাহের ৫০ থেকে ৫৫ শতাংশ বাজার দখল করবে। এই বিষয়ে এখনও সবার আগে রয়েছে সুইগি। তবে এবার জোম্যাটো এগিয়ে যাবে বলে মনে করা হচ্ছে। তবে সংস্থার এই সিদ্ধান্তে চরম দুশ্চিন্তায় পড়েছেন উবার ইটস-এর প্রায় ১০০ জন কার্যনির্বাহি কর্মকর্তা। কারণ জোম্যাটো জানিয়ে দিয়েছে উবার ইটস অধিগ্রহণ করলেও এই সংস্থার কর্মকর্তাদের তারা তাদের সংস্থায় নেবে না। ফলে উবার ইটস তাদের অন্যত্র স্থানান্তরিত করতে পারেন, নাহলে তাঁদের চাকরি চলেও যেতে পারে।