নভেল করোনভাইরাস সংক্রমণে ক্রমে মৃত্যুপুরী হয়ে উঠছে ইউরোপের প্রথম সারির দেশ ইতালি। রোজই কোভিড-১৯ সংক্রমণজনিত মৃত্যতে নিত্যনতুন রেকর্ড গড়ছে এই দেশ। বুধবার একদিনে সেই দেশে ৪৭৫ জনের এই রোগে মৃত্য়ুর খবর পাওয়া গিয়েছিল। যা ছিল, এই ভাইরাস সংক্রমণে একদিনে সর্বাধিক মৃত্যুর সংখ্যা। এদিন আবার মৃত্যুমিছিলে চিনকে ছাপিয়ে গেল ইতালি।

বৃহস্পতিবার, ইতালি সরকারের পক্ষ থেকে জানানো হয়েছে এদিন নভেল করোনাভাইরাস সংক্রমণজনিত কারণে তাদের দেশে মৃতের সংখ্যা আরও ৪২৭ জন বেড়ে ৩,৪০৫-এ পৌঁছেছে। আর এখনও পর্যন্ত সেই দেশে আক্রান্তের সংখ্যা ৪১,০৩৫ জন। তারমধ্য়ে সুস্থ হয়ে উঠেছেন ৪,৪৪০ জন। আরও অন্তত ২,৪৯৮ জনের অবস্থা বেশ গুরুতর।

চিনেই প্রথম এই রোগের প্রাদুর্ভাব ঘটেছিল। এখন অবশ্য চিন অবস্থা অনেকটাই সামলে নিয়েছে। এদিন সেই দেশে নতুন করে আক্রান্ত হয়েছেন মাত্র ৩৪ জন। আর মৃতের সংখ্যা বেড়েছে ৮ জন। এখনও পর্যন্ত অন্যান্য দেশের থেকে চিনের মোট আক্রান্তের সংখ্যা অনেক বেশি, ৮০,৯২৮ জন। কিন্তু, সেই দেশে ইতালি এবং অন্যান্য হবেশ কয়েকটি দেশের তুলনায় মৃত্যুর হার বেশ কম। বৃহস্পতিবার পর্যন্ত সেই দেশে কোভিড-১৯'এ আক্রান্ত হয়ে মৃত্যু হয়েছে ৩২৪৫ জনের।

অন্যদিকে মধ্যপ্রাচ্যে করোনাভাইরাস সংক্রমণের কেন্দ্রস্থল হয়ে উঠেছে ইরান। সেই দেশে এদিন প্রথম ভারতীয় নাগরিকের মৃত্যু হয়েছে। তাঁকে নিয়ে এদিন ইরানে মোট ১৪৯ জনের মৃত্যু হয়েছে কোভিড-১৯ আক্রান্ত হয়ে। সব মিলিয়ে মৃতের সংখ্যা দাঁড়িয়েছে ১২৮৪-এ। আর এদিন আরও ১০৪৬ জন আক্রান্ত হওয়ায় মোট আক্রান্তের সংখ্যা দাঁড়িয়েছে ১৮,৪০৭-এ।  

অন্যদদিকে ভারতে বৃহস্পতিবার পঞ্জাবের এক প্রৌঢ়ের মৃত্যু হওয়ায় কোভিড-১৯'এ আক্রান্ত হয়ে মৃতের সংখ্যা ৪ হয়েছে। আর এদিন নতুন করে আরও ১৫ জন রোগীর সন্ধান পাওয়া গিয়েছে। সবমিলিয়ে এদিন রাত পর্যন্ত ভারতে মোট ১৮৪ জন কোভিড-১৯ আক্রান্তের সন্ধান পাওয়া গেল। এদিন অবশ্য কর্নাটকের আরও দুইজন রোগী সুস্থ হয়ে উঠেছেন। তাতে সব মিলিয়ে ভারতে সুস্থ হয়ে ওঠার রোগীর সংখ্যা ২০-তে পৌঁছেছে।