টাকা থেকে টাচ স্ক্রিন মোবাইল ফোন এমনকি  প্ল্যাস্টিক ,কাচ আর স্টেনলেসের  জিনিসে সাধারণ তাপমাত্রায় করোনাভাইরাস বেঁচে থাকতে পারে টানা ২৮ দিন। অস্ট্রেলিয়ার নতুন গবেষণায় উঠে এল এমনই এক ভয়ঙ্কর তথ্য। অস্ট্রেলিয়ার বায়োসিকিউরিটি ল্যাবরেটরির গবেষণায় দেখা যাচ্ছে করোনাভাইরাস অত্যান্ত শক্তিশালী একটি জীবাণু। যেকোনও মসৃণ তলদেশে এটি ২৮ দিন বহাত তবিয়েতে বেঁচে থাকতে পারে। 

আগের একটি গবেষণায় বিজ্ঞানীরা দাবি করেছিলেন কোনও মসৃণ পৃষ্টে করোনার জীবাণু একটানা ৩-৪ দিন বেঁচে থাকতে পারে। কিন্তু নতুন গবেষণা সম্পূর্ণ উল্টো তথ্যই দিচ্ছে। অস্ট্রেলিয়ার বিজ্ঞাণীরা জানিয়েছেন ঘরের তাপমাত্রা অথবা ২০ ডিগ্রি সেলসিয়াসে করোনার জীবাণু দীর্ঘ সময় বেঁচে থাকে। নতুন এই গবেষণা পত্রটি অক্টোবরে ভাইরোলজি জার্নালে প্রকাশিত হয়েছিল। আর বিজ্ঞানীদের সমীক্ষায় ধরা পড়েছে জীবাণুটি  কোনও কোনও ক্ষেত্রে ৪০ ডিগ্রি তাপমাত্রার নিচে পৌঁছে গেলে একদিনের বেশি প্রাণে বাঁচতে পারে না। তবে শীতকালে ভাইরাসটি আরও শক্তিশালী হয়ে যায় বলেও দাবি করা হয়েছে। আর সেই সঙ্গে বলা হয়েছে আসন্ন শীতকালে আরও বাড়তে পারে করোনার প্রকোপ। তবে সূর্যের আলো করোনার জীবাণুকে দ্রুত ধ্বংস করতে পারে বলেও দাবি করা হয়েছে। 

গবেষণা পত্রে বলা হয়েছে ইনফ্লুয়েঞ্জার থেকেও শক্তিশালী করোনার জীবাণু। আর করোনাভাইরাসের এই জীবাণুর হাত থেকে বাঁচতে মাস্কের ব্যবহার আর হাত ধোয়া অত্যান্ত জরুরি বলে জানান হয়েছে। পাশাপাশি বলা হয়েছে মসৃণ পৃষ্টের যোকোনও জিনিস অর্থাৎ ফোন বা টাকা পয়সা নিয়মিত স্যানিটাইজ করা জরুরি। বিভিন্ন তাপমাত্রায় করোনার জীবাণু রেখে দেখা হয়েছে কত তাপমাত্রায় কতক্ষণ বেঁচে থাকে জীবাণুটি। 


                                 ২০ ডিগ্রি                     ৩০ ডিগ্রি                            ৪০ ডিগ্রি 
স্টেনলেস স্টিল          ৬.৯৫দিন                   ১.৭৪দিন                           ৪.৮৬ঘণ্টা

পলিমার নোট            ৬.৮৬দিন                      ২.০৪দিন                      ৪.৭৮ ঘণ্টা

পেপার নোট               ৯.১৩দিন                        ৪.৩২দিন                      ৫.৩৯ঘণ্টা

কাঁচ                            ৬.৩২দিন                        ৪.৪৫দিন                        ৬.৫৫ঘণ্টা

সুতো                            ৫.৫৭দিন                        ১.৬৫দিন                         বেঁচে থাকে না 


বিজ্ঞানীদের পক্ষ থেকে জানান হয়েছে ইনকিউবেশনের তাপমাত্রা বাড়িয়ে দেওয়ার সঙ্গে সঙ্গে জীবাণুগুলি নিষ্ক্রিয় হতে শুরু করেছিল। পাশাপাশি জানান হয়েছে ৭০ ডিগ্রি সেলসিয়াস তাপমাত্রায় ভাইরাসটি নিষ্ক্রীয় হতে সময় লেগেছিল মাত্র ৫ মিনিট। বিজ্ঞানীরা দক্ষিণ গোলার্ধের কথাও উল্লেখ করেছিলেন। জানিয়েছেন, গরমকালে ভাইরাসটি দীর্ঘস্থায়ী হতে পারে না। আবার পরীক্ষা করে দেখা গেছে ৪ ডিগ্রি সেলসিয়াল তাপমাত্রায় জীবাণুটি দীর্ঘ স্থায়ী হয়ে রয়েছে।