নেপালে প্রবল বর্ষণের জেরে তৈরি হয়েছে বন্যা পরিস্থিতি। আর সেই বন্যার কবলে পড়েছেন নেপালের অগণিত মানুষ। সেইসঙ্গে প্রবল বৃষ্টির জেরে পাহাড়ি এলাকায় নেমেছে ধস। সব মিলিয়ে নেপালের পরিস্থিতি ক্রমশই ভয়ঙ্কর হয়ে উঠেছে। এখনও পর্যন্ত পাওয়া খবর অনুযায়ী বন্যার জেরে নেপালে মৃত্যু হয়েছে প্রায় ৪৩ জনের। 

পাশাপাশি প্রবল বন্যার জেরে নিখোঁজ হয়েছেন প্রায় ২৪ জন এবং ভুমিধসের জেরে আহত হয়েছেন ২০ জন। একাধিক এলাকা বন্যা কবলিত হওয়ায় পাশাপাশি ভুমিধসের ফলে ভেঙে গিয়েছে ঘর-বাড়ি। কাঠমান্ডুতে দেওয়াল ভেঙে মৃত্যু হয়েছে তিন জনের। একটুকরো উঁচু জমির আশায় রয়েছেন সাধারণ মানুষ। আহতদের উদ্ধার করার জন্য নেমেছেন উদ্ধারকারী দল। প্রশাসনের তরফ থেকেও পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণের জন্য ব্যবস্থা নেওয়া হচ্ছে। সবথেকে ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে নেপালের ভোজপুর, মাকানপুর, কোতাং, কাভরে, ললিতপুরের মতো জায়গাগুলি।   

নেপালের আবহাওয়া দফতর সূত্রে খবর, আগামী দিনে আরও ভারী থেকে অতি ভারী বৃষ্টিপাতের সম্ভাবনা রয়েছে।  আরও জানানো হয়েছে যে প্রতিদিন প্রায় ১০০ মিলিমিটারের কাছাকাছি বৃষ্টিপাত হতে পারে। সেইকারণে সাধারণ মানুষের উদ্দেশে জারি করা হয়েছে সতর্কতা। প্রশাসনিক সূত্রে জানা গিয়েছে যে, পূর্ব নেপালের কোসি নদী বিপদসীমার উপর দিয়ে প্রবাহিত হচ্ছে। বিজ্ঞানীরা জানিয়েছেন জলবায়ুর পরিবর্তন বৃষ্টিপাতের পরিমাণের ওপর প্রভাব ফেলার কারণে প্রকৃতি দিনে দিনে আরও কঠিন রূপ ধারণ করছে।