বিশ্ব-উষ্ণায়নের করাল গ্রাস থেকে মুক্তি নেই এই বিশ্বের, এবার তা প্রমাণ করল ইউরোপ। দাবদাহের মাত্রা এতটাই প্রবল যে ফ্রান্সের তাপমাত্রা এখন ৪৫.৯ ডিগ্রি সেলসিয়াস। 

প্রসঙ্গত এবছর সময়ের অনেক আগেই গরম পড়েছে ইউরোপে। সময়ের আগে আসার কারণেই গরমের প্রভাবও তীব্রতর হয়েছে। ফ্রান্সের আবহাওয়া দফতর সূত্রে জানা গিয়েছে, এত তীব্র দাবদাহ ফ্রান্সে এই প্রথম। প্রসঙ্গত ফ্রান্সের ভিলেভিয়েল শহরের তাপমাত্রা রেকর্ড করেছিল, সেখানে তাপমাত্রার পারদ ছুঁয়েছিল ৪৫.১ ডিগ্রি সেলসিয়াসে। প্রসঙ্গত এর  আগে ২০০৩ সালে এমন তাপপ্রবাহ দেখা দিয়েছিল ইউরোপে। সেবার তাপমাত্রার পারদ ছুঁয়েছিল ৪৪.১ ডিগ্রিতে।

এই তীব্র দাবদাহের জেরে মানুষের প্রাণহানিরও খবর পাওয়া যাচ্ছে। তীব্র তাপপ্রবাহের জেরে হিট স্ট্রোকে আক্রান্ত হওয়ার ঘটনাও প্রকাশ্যে আসছে। রেডিও, টেলিভিশন-সহ অন্যান্য নানাভাবে সাধারণ মানুষকে সতর্ক করা হচ্ছে। ফ্রান্সের স্বাস্থ্যমন্ত্রকের তরফ থেকে বারংবার প্রচার চালানো হচ্ছে যে এই অতিরিক্ত গরমের কী কী করা উচিত। তাঁরা এও নির্দেশ দিচ্ছেন যে, গরমে যতটা সম্ভব বাইরে না বেরোনোই উচিত।  ইতিমধ্যে দেশের চারটি অঞ্চলে জারি করা হয়েছে লাল সতর্কতা। বিশেষজ্ঞদের কথায় বিশ্ব উষ্ণায়মের এই প্রভাব আগামী দিনে আরও তীব্র থেকে তীব্রতর হবে।