আক্রান্তের সংখ্যা ৩১ লক্ষের বেশি। মারা গিয়েছে ২ লক্ষ ১৮ হাজারের বেশি মানুষ। গোটা বিশ্ব করোনাভাইরাসের মহামারী পরিস্থিতি মোকাবিলায় হিমশিম খাচ্ছে। এই মারণ ভাইরাসের আতঙ্কে ভুগছে গোটা দুনিয়া। তবে এর মধ্যেই আশার আলো দেখালেন সিঙ্গাপুরের একদল গবেষক। করোনাভাইরাসের আয়ু শেষ হতে আর বেশি দেরি নেই, দ্রুত অবসান ঘটতে যাচ্ছে মহামারীর। এমন দাবিই করছেন সিঙ্গাপুর ইউনিভার্সিটি অফ টেকনোলজি অ্যান্ড ডিজাইনের (এসইউটিডি) গবেষকরা। তাঁরা জানাচ্ছেন, "আর কিছুদিন পরেই করোনা মহামারীর প্রকোপ কমে যাবে। আক্রান্ত দেশগুলো মারণভাইরাসের থেকে  মুক্তি পাবে।"

এসইউটিডি দাবি করেছে, এসআইআর (সাসপেকটিভ-ইনফেকটেড-রিকভার) মডেল অনুযায়ী, করোনাভাইরাসের প্রকোপ কমার প্রমাণ মিলছে। আয়ু শেষ হয়ে আসছে এই প্রাণঘাতী ভাইরাসটির। নানা দেশে করোনা সংক্রমণের সময় এবং ভাইরাসটির জীবনচক্রের মেয়াদ সম্পর্কে বিভিন্ন তথ্যের ওপর ভিত্তি করেই এই সিদ্ধান্তে পৌঁছেছেন তাঁরা।

করোনার সংক্রমণ রোধ করতে পারে সিগারেটের নিকোটিন, চাঞ্চল্যকর দাবি এবার গবেষকদের

করোনার ভ্যাকসিনের সঙ্গে এবার বাংলার যোগ, অক্সফোর্ডের গবেষক দলের সদস্য কলকাতার মেয়ে

দেশে ৩১ জুলাই পর্যন্ত চলুক ওয়ার্ক ফ্রম হোম, গ্রিন সিগন্যাল দিল কেন্দ্র

সিঙ্গাপুর ইউনিভার্সিটি অফ টেকনোলজি অ্যান্ড ডিজাইনের গবেষকদের আরও চাঞ্চল্যকর দাবি, বিশ্ব থেকে করোনাভাইরাসের  ৯৭ শতাংশ দূর হবে ২৯ মে’র মধ্যে,  আর পুরোপুরি চলে যাবে চলতি বছরের ৮ ডিসেম্বরের মধ্যে। মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রে ১১ মের মধ্যে ৯৭ শতাংশ সংক্রমণ কমে যাবে। ইতালিতে ৭ মে’র মধ্যে কমবে ৯৭ শতাংশ সংক্রমণ। আর ভারতে ২১ মে’র মধ্যে ৯৭ শতাংশ সংক্রমণ কমে যাবে।

গবেষণার প্রাপ্ত তথ্য অনুযায়ী, ইরানে করোনাভাইরাসের প্রাদুর্ভাব কমবে ১০ মে, তুরস্কে ১৫ মে, ব্রিটিশ  যুক্তরাজ্যে ৯ মে, স্পেনে মে মাসের শুরুতে, ফ্রান্সে ৩ মে, জার্মানিতে ৩০ এপ্রিল এবং কানাডায় ১ মে।

সিঙ্গাপুরের গবেষকদের মতে ২৬ জুলাইয়ের পর ভারতে আর নতুন করে করোনা সংক্রমণ ঘটবে না। এই গবেষণায় করোনার দ্বিতীয় ওয়েভের বিষয়টিকে বাইরে রাখা হয়েছে।