শনিবার দু'দিনের সফরে ভুটান গিয়েছেন নরেন্দ্র মোদী। সেখানে গিয়ে প্রথম দিনেই এলপিজি থেকে শুরু করে মহাকাশ প্রযুক্তি বিদ্যা সম্পর্কিত বেশ কয়েক প্রকল্পের বিবরণ দিয়েছেন নরেন্দ্র মোদী। সেইসঙ্গে ভুটান সফরের প্রথম দিনেই ভারত- ভুটান সম্পর্ককে জলবিদ্যুৎ প্রকল্পের বাইরে নিয়ে গিয়ে এক বিশেষ মর্যাদা প্রদানের লক্ষ্যে রয়েছেন নরেন্দ্র মোদী। 

এদিন দুই দেশের দ্বিপাক্ষিক সম্পর্ককে তরান্বিত করতে দুই দেশের প্রধানমন্ত্রী এদিন বৈঠকেও অংশ নেন। পরিকল্পনা মাফিক দুই দেশের মধ্যে তথ্যপ্রযুক্তি, বিমান পরিষেবা, মহাকাশ গবেষণা, বিদ্যুৎ ও শিক্ষা সংক্রান্ত ১০টি মউ স্বাক্ষরিত হয়েছে। পাশাপাশি এলপিজি সরবরাহ থেকে  শুরু করে রুপে কার্ডের উদ্বোধন, এবং বিজ্ঞান- প্রযুক্তি  ও শিক্ষাক্ষেত্রে সহযোগীতা, সেইসঙ্গে বিদেশি মুদ্রার আদান-প্রদান-এর মতো বিষয়গুলির ঘোষণা করেন প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী। 

প্রধানমন্ত্রীর তরফে আরও ঘোষণা করা হয় যে, রয়্যাল ভুটান বিশ্ববিদ্যালয়ের সঙ্গে এদেশের আইআইটি-সহ একাধিক শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের সরাসরি যোগাযোগ চালানো হবে। প্রধানমন্ত্রী আরও বলেন ভারত ও ভুটানের যৌথ উদ্যোগে জলবিদ্যুৎ উৎপাদন ২০০০ মেগাওয়াট ছাড়িয়েছে। ভুটানের সাধারণ মানুষের জন্য এলপিজি সরবরাহের পরিমাণ প্রতি মাসে ৭০০ মেট্রিক টন থেকে বাড়িয়ে ১০০০ মেট্রিক টন করা হেয়েছে।

 

নরেন্দ্র মোদী আরও বলেন যে, দুই দেশের আর্থিক লেনদেন-এর পদ্ধতির ডিজিটাইজেশন এবং দুই দেশের মধ্যে ব্যবসা-বাণিজ্য এবং অর্থনৈতিক সহযোগীতা তরান্বিত করতে রুপে কার্ড একটা নয়া মাত্রা সংযোজন করবে। আরও জানা গিয়েছে যে, ভুটানকে ভারতের সহযোগীতা পঞ্চবার্ষিকী পরিকল্পনার মাধ্যমে রূপায়িত হবে। মোদী বলেন এই পঞ্চবার্ষিকী পরিকল্পনার মূল বিষয়গুলি নির্ধারিত হবে ভুটানবাসীর 'ইচ্ছা'র দ্বারা। 

প্রধানমন্ত্রী বলেন, ভুটান সম্প্রীতি , একতা  এবং মমত্ববোধের সঠিক অর্থ অনুধাবন করেছে শনিবার ছোট ছোট শিশুরা সমবেত হয়ে যেভাবে তাঁকে স্বাগত জানিয়েছে সেই ছোট ছোট ছেলেয়েমেয় হাসিমুখটি তিনি কখনও ভুলবেন না।